default-image

করোনার সংক্রমণের সর্বোচ্চ হারের মধ্যে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে পশ্চিমবঙ্গে কড়া লকডাউন শুরু হয়েছে। রাত ১০টা পর্যন্ত চলবে।

লকডাউন চলাকালে বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন, অফিস, আদালত, ব্যাংক, হাটবাজার। শুধু ছাড় দেওয়া হয়েছে অত্যাবশ্যকীয় পরিষেবায়।

পশ্চিমবঙ্গে করোনার লাগাম টানতে না পেরে রাজ্য সরকার ৩১ আগস্ট পর্যন্ত প্রতি সপ্তাহে রাজ্যে ২ দিন করে পূর্ণ লকডাউন কার্যকরের ঘোষণা দেয়। এ সপ্তাহের লকডাউন আজ বৃহস্পতিবার ও আগামী শনিবার।

পরবর্তী সপ্তাহের লকডাউন বুধবার। অন্যদিনের কথা রাজ্য সরকার পরে ঘোষণা করবে।

করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুতে গতকাল বুধবার পশ্চিমবঙ্গ নতুন রেকর্ড হয়। পশ্চিমবঙ্গে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে ১৭ মার্চ। সেই থেকে ৪ মাস ৬ দিনের মাথায় রাজ্যে করোনার সর্বোচ্চ সংক্রমণ শনাক্ত হয়।

সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় পশ্চিমবঙ্গে করোনায় সংক্রমিত হন ২ হাজার ২৯১ জন। মারা যান ৩৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতায় করোনায় সংক্রমিত হন ৬৯২ জন। মারা যান ১৫ জন।

এখন পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৪৯ হাজার ৩২১ জন। মোট মারা গেছেন ১ হাজার ২২১ জন।

২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ৬১৫ জন। সব মিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ২৯ হাজার ৬৫০ জন। এখন সুস্থতার হার ৬০.৬১ শতাংশ।

পশ্চিমবঙ্গের ২৩ জেলার মধ্যে গতকাল ২২ টিতে সংক্রমণ শনাক্ত হয়। বাদ গেছে শুধু ঝাড়গ্রাম জেলা।

গতকাল রাজ্যের সর্বত্র পুলিশ মাইকিং করে লকডাউন পালনের আহ্বান জানায়। লকডাউন অমান্য করলে যথাযথ শাস্তি দেওয়া হবে বলেও সতর্ক করা হয়।

ভারতে করোনা নিয়ে গবেষণা করা বেসরকারি সংস্থা থাইরোকেয়ার এক সমীক্ষায় বলেছে, ১৮ কোটি মানুষ অর্থাৎ ১৫ শতাংশ ভারতবাসীর শরীরে অজান্তেই ভাইরাসের অ্যান্টিবডি তৈরি হয়ে গেছে। এই হার কলকাতায় ২১.৭ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন