প্রিয়ান্থা কুমারাকে হত্যা মামলায় ৮৯ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছিল। তাঁদের মধ্যে ৯ জন কিশোর।

সোমবার যে ছয়জনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে, তাঁরা হলেন আলী হুসেইন, আবু তালহা, মুহাম্মদ হামির, তাইমুর, আবদুল রেহমান ও মোহাম্মদ আরশাদ। আর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাওয়া ৯ জন হলেন রোহাইল আমজাদ, মোহাম্মদ শোয়াইব, এহতিশাম, ইমরান রিয়াজ, সাজিদ আমিন, জাইঘাম মেহদি, আলী হামজা, লোকমান হায়দার ও আবদুল সবুর। আলী আসগর নামের এক আসামিকে পাঁচ বছরের জেল দেওয়া হয়েছে। এ মামলায় এক ব্যক্তিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

সরকারি কৌঁসুলি আবদুল রউফ ওয়াটুর নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের একটি দল এ মামলার তদন্তকাজ সম্পন্ন করেন। কোট লাখপাত জেলে এ মামলার বিচারকাজ শেষ করেন সন্ত্রাসবিরোধী আদালত। সরকারি কৌঁসুলি ও বিবাদী পক্ষ তাঁদের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। তদন্ত কর্মকর্তা ও সাক্ষীদের জবানবন্দিও নেওয়া হয় তখন।

বিচারপতি নাতাশা নাসিমের সভাপতিত্বে বিচার চলার সময় ৪৬ সাক্ষীকে আদালতের সামনে হাজির করেছিলেন কৌঁসুলি। পাশাপাশি প্রমাণ হিসেবে হত্যাকাণ্ডস্থলের ১০টি সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ ও ৫৫ জন অভিযুক্ত ব্যক্তির মুঠোফোনে ধারণকৃত ভিডিও জমা দেওয়া হয়েছিল।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন