বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের উপপ্রধান ছিলেন বেন বারাক। তিনি বলেন, ‘পেগাসাসের লাইসেন্স দেওয়ার সার্বিক প্রক্রিয়া খতিয়ে দেখার বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। পেগাসাস ব্যবহার করে অনেক সন্ত্রাসী চক্রকে ধরা সম্ভব হয়েছে। কিন্তু এই স্পাইওয়্যারের অপব্যবহার করা হয়েছে কি না কিংবা কোনো দায়িত্বজ্ঞানহীন সংস্থার কাছে বিক্রি করা হয়েছে কি না, সেটা আমাদের খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।’
এনএসও গ্রুপের প্রধান নির্বাহী শালেভ হুলিও বলেন, ‘সরকারের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিশন গঠন করায় আমরা আমাদের অবস্থান পরিষ্কার করতে পারব। এনএসও গ্রুপ গ্রাহকদের নাম–পরিচয় প্রকাশ করে না। তবে তদন্ত কমিশন বিস্তারিত জানতে চাইলে তাদের তা জানানো হবে।’

এর আগে ওয়াশিংটন পোস্টকে শালেভ হুলিও বলেছেন, ‘আমাদের সিস্টেমের অপব্যবহার নিয়ে অভিযোগের ব্যাপারে আমি উদ্বিগ্ন। এটা ক্রেতাদের বিশ্বাসে ফাটল ধরাতে পারে, এর প্রতিটি অভিযোগ যাচাই করা উচিত বলে আমি বিশ্বাস করি। অভিযোগ যাচাইয়ের পরে হয়তো কিছু সত্যতাও মিলতে পারে। বিষয়টি পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া গেলে এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

আড়ি পাতার ঘটনার প্রাথমিক অনুসন্ধান করে এনএসও জানিয়েছে, তারা স্পাইওয়্যার ব্যবহারকারীদের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করে থাকে। তাদের বিরুদ্ধে প্রযুক্তির অপব্যবহারের অভিযোগ পেলে তাদের অ্যাকসেস বাতিল করা হয়। আড়ি পাতাসহ যেকোনো কর্মকাণ্ডের জন্য সংশ্লিষ্ট ক্রেতা দায়ী। এই ক্ষেত্রে তাদের (এনএসও গ্রুপের) কোনো দায়ভার নেই।

এনএসও গ্রুপের একটি তথ্যভান্ডারে সংরক্ষিত ৫০ হাজার ফোন নম্বর ফাঁস হয়েছে। সেগুলো নিয়ে কয়েক মাস ধরে অনুসন্ধান চালিয়ে স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে স্মার্টফোনে আড়ি পাতার ঘটনা প্রকাশ করেছে ১৭টি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম।

স্পাইওয়্যার পেগাসাস ব্যবহার করে আইফোন ও অ্যানড্রয়েড ফোনের সব মেসেজ, ছবি, ই-মেইল, কল রেকর্ড বের করা যায়। এই স্পাইওয়্যার ফোন ব্যবহারকারীর অজ্ঞাতেই মাইক্রোফোন চালু করে দিতে পারে।

পেগাসাস ব্যবহার করে স্মার্টফোনে আড়ি পাতা হয়েছে বা আড়ি পাতার চেষ্টা করা হয়েছে, এমন ব্যক্তিদের তালিকায় রয়েছেন বিভিন্ন দেশের অধিকারকর্মী, আইনজীবী, সাংবাদিকসহ প্রভাবশালী ব্যক্তিরা। রয়েছেন ১৪ দেশের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানেরা। এমনকি কোনো কোনো দেশে ক্ষমতাসীন পরিবারের সদস্যদের ওপরও আড়ি পাতা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ধারণা করা হচ্ছে, ২০১৬ সাল থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত এনএসওর গ্রাহকেরা এসব ব্যক্তির স্মার্টফোনে আড়ি পেতেছে।
বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, এনএসওর গ্রাহক তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশ, ভারত, সৌদি আরবসহ বিশ্বের ৪০টির বেশি দেশের নাম। তবে গোপনীয়তার শর্ত ভঙ্গ না করার যুক্তিতে এনএসও তাদের গ্রাহকদের নামের তালিকা প্রকাশ করেনি। শুধু বলেছে, ইসরায়েলি সরকারের অনুমতি নিয়ে গ্রাহকদের কাছে পেগাসাস বিক্রি করা হয়েছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন