বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভারপ্রাপ্ত আফগান প্রতিরক্ষামন্ত্রী মোল্লা মোহাম্মদ ইয়াকুব গতকাল কাবুলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘বিশ্ব এবং প্রতিবেশী দেশ দুই জায়গা থেকেই আমরা সমস্যা ও চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছি। এর স্পষ্ট উদাহরণ হলো কুনারে আমাদের ভূখণ্ডের ওপর অভিযান। আমরা এ অভিযান সহ্য করতে পারি না। আমরা হামলা সহ্য করেছি। জাতীয় স্বার্থের কথা ভেবে আমরা তা সহ্য করেছি। পরবর্তী সময়ে আমরা তা হয়তো সহ্য করব না।’

মোল্লা মোহাম্মদ ইয়াকুব বলেন, শান্তি নিশ্চিত করতে দীর্ঘ মেয়াদে আফগানিস্তানের সঙ্গে কাজ করার ব্যাপারে আশাবাদী পাকিস্তান। ইয়াকুবের এ বক্তব্যের ব্যাপারে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্রের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল।

জবাবে ওই মুখপাত্র বলেন, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান হলো ভ্রাতৃত্বপূর্ণ দেশ। দুই দেশের সরকার ও জনগণ সন্ত্রাসবাদকে গুরুতর হুমকি হিসেবে বিবেচনা করে থাকে এবং দীর্ঘ সময় ধরেই এ নিয়ে ভুগছে। সংশ্লিষ্ট প্রাতিষ্ঠানিক মাধ্যমগুলো ব্যবহার করে গঠনমূলক উপায়ে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা জরুরি। যেন আন্তসীমান্ত সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় এবং এসব দেশের সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার কাজে সমন্বয় করা যায়।

কুনার ও খোস্ত প্রদেশের স্থানীয় কর্মকর্তাদের দাবি, এসব এলাকায় পাকিস্তানের বিমান হামলায় ৩৬ জন নিহত হয়েছে। বিমান হামলার ঘটনায় প্রতিক্রিয়া জানাতে গত সপ্তাহে পাকিস্তানের দূতকে তলব করেছিল তালেবান প্রশাসনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

আফগানিস্তানে নিয়োজিত জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থার প্রধান বলেছেন, ১৬ এপ্রিল খোস্ত ও কুনার প্রদেশে ওই হামলার ঘটনায় ২০ শিশু নিহত হয়েছে।

গত বছরের আগস্টে আফগানিস্তানে ক্ষমতা দখল করে তালেবান। তখন থেকে দেশটির সঙ্গে পাকিস্তানের সীমান্ত এলাকায় বেশ কয়েকবার অচলাবস্থা তৈরি হতে দেখা গেছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন