default-image

ফিলিপাইনের দক্ষিণাঞ্চলে বন্যার কারণে আজ সোমবার হাজারো মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে। ঝোড়ো বাতাসের সঙ্গে প্রচণ্ড বৃষ্টির কারণে এ বন্যা দেখা দেয়। খবর এএফপির।

আজ সোমবার ভোরে সুরিগাও দেল সুর প্রদেশে প্রথম বন্যা দেখা দেয়। গভর্নর জনি পিমেন্টেল এএফপিকে জানান, সেখান থেকে চার হাজার মানুষকে অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘মুষলধারে বৃষ্টি পড়ছে। তিন দিনের আগে এ বৃষ্টি না-ও থামতে পারে।’

তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। আরও ছয় হাজার লোককে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়া হতে পারে। বন্যায় কিছু এলাকায় পানি পাঁচ ফুট উঁচুতে উঠে গিয়েছে। রাবার বোট নিয়ে বন্যার পানিতে আটকে পড়া দুর্গত লোকজনকে উদ্ধার করছেন উদ্ধারকর্মীরা।

ফিলিপাইনের বন্যাকবলিত ওই এলাকায় বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ১১ কিলোমিটার। দুই দিনের মধ্যে ঝড় ফিলিপাইনের কেন্দ্রে আঘাত হানতে পারে। ম্যানিলার বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, রাজধানী থেকে আঞ্চলিক দুটি ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। সুরিগাও দেল সার ফিলিপাইনের অন্যতম বন্যাপ্রবণ এলাকা।

এ মাসের শুরুতে ঘূর্ণিঝড় হাগুপিটের আঘাতে ১৮ জন মারা গিয়েছে। গত বছর ঘূর্ণিঝড় হাইয়ানের আঘাতে ৭ হাজার ৩৫০ জন মারা যায় বা নিখোঁজ হয়।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন