default-image

আগে থেকেই বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক করে রেখেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার মিডিয়া ব্যবস্থাপক কেট ফাদারিংহাম। কিন্তু বিয়ের অনুষ্ঠানে প্রাকৃতিক দুর্যোগ হানা দিতে পারে, তা ভাবেননি তিনি। কিন্তু কপালে থাকলে যা হয়! রাতভর বৃষ্টিতে সকালে হুট করেই বন্যা শুরু হয় নিউ সাউথ ওয়েলসের মধ্য-উত্তর উপকূলে। কেট তাঁর হবু স্বামীকে জানালেন, তিনি বিয়ের অনুষ্ঠান পণ্ড করতে চান না। এত দিন ধরে বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য যে পরিকল্পনা করে রেখেছেন, তা বন্যার কারণে ভেস্তে যাবে, এটা তিনি মেনে নিতে পারছিলেন না।

যুক্তরাজ্যের দ্য গার্ডিয়ান–এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, শনিবার সকালে আঞ্চলিক শহর উইনহ্যামের বাইরে মা-বাবার বাড়িতেই আটকে পড়েন কেট। ঘুমহীন, রাতের বৃষ্টির পর ভোরে চারপাশে কুয়াশা দেখতে পান তিনি। দিনের আলো ফুটলে তিনি বুঝতে পারেন, চারপাশে বন্যার পানি জমেছে। শহরে যাওয়ার পথে একমাত্র যে ব্রিজ, সেটিও পানিতে ডুবে গেছে। কিন্তু বেলা তিনটার দিকে বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক করা থাকায় দুশ্চিন্তায় পড়েন কেট।

বিজ্ঞাপন

তিন মাস ধরে বিয়ের পরিকল্পনা করেছিলেন কেট। বৃষ্টির বিষয়টিও মেনে নিয়েছিলেন। এ জন্য গামবুট পরে বিয়ে করার পরিকল্পনাও করেছিলেন। কিন্তু বন্যার মতো এমন প্রাকৃতিক দুর্যোগে কী করবেন, তা ভেবে পাচ্ছিলেন না। এ জন্য তিনি ভেঙে পড়েছিলেন। কান্নাকাটি শুরু করেছিলেন। বিষয়টি আর মজার ছিল না। এবার তিনি প্রাকৃতিক দুর্যোগের সঙ্গেই নিজেকে মানিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করেন। তিনি সেদিনই বিয়ে করার পরিকল্পনা ঠিক করেন। এরপরই অসম্ভব কাজটি সম্পন্ন করার পরিকল্পনা করেন। শুরুতে নৌকা ব্যবহার করে তাঁকে উদ্ধারের পরিকল্পনা করেন হবু স্বামী ওয়েনি বেল। কিন্তু নিরাপত্তার কথা ভেবে তা বাতিল করা হয়।

এরপর তাঁরা হেলিকপ্টার ভাড়া করার পরিকল্পনা করেন। দুজন মিলে হেলিকপ্টার কোম্পানির খোঁজ শুরু করেন। এ জন্য কেট সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সাহায্য চান। পরে স্থানীয় একটি টেলিভিশন স্টেশন তাঁদের উদ্ধারকাজে এগিয়ে আসতে রাজি হলে কেট তাঁদের প্রস্তাব গ্রহণ করেন। এরপর পোর্ট ম্যাকোয়ার থেকে একটি হেলিকপ্টার গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করবে বলে জানানো হয়। এ জন্য গোছগাছ করতে মাত্র ৫০ মিনিট সময় পান তিনি। দ্রুত প্রস্তুত হয়ে কেট হেলিকপ্টারের জন্য অপেক্ষা করতে থাকেন।

হেলিকপ্টার আসার পর মাত্র পাঁচ কিলোমিটার দূরে কনেকে নামিয়ে দেন পাইলট। বিয়েতে কনের পৌঁছাতে ১৫ মিনিট দেরি হয়। তবে কনে আর বিয়ের পোশাক ঠিকঠাক থাকলেও অন্য জটিলতা তৈরি হয় বিয়েতে। ক্যাটারিংয়ের লোকজন, মেকআপ শিল্পী ও বিয়ের অনুষ্ঠানের গায়ক সেখানে যেতে পারেননি। তবে তাঁদের ভাগ্য ভালো ছিল। অধিকাংশ অতিথি ছিল শহরের এবং শহরেই অন্য ক্যাটারিং সেবা তাঁরা তৎক্ষণাৎ পেয়ে যান। সবশেষে বিয়ের অনুষ্ঠান জমজমাটভাবেই শেষ হয়।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন