default-image

সিরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়ালিদ মুয়াল্লেম (৭৯) মারা গেছেন। স্থানীয় সময় সোমবার তাঁর মৃত্যু হয়। বাশার আল-আসাদ সরকারের মন্ত্রিসভার অন্যতম সদস্য হিসেবে পরিচিত ছিলেন ওয়ালিদ।

বার্তা সংস্থা এএফপি বলছে, ২০০৬‍ সাল থেকে সিরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন ওয়ালিদ। এক দশক ধরে নানা সংঘাত-সংঘর্ষ ও মন্ত্রিসভায় রদবদলের মধ্যেও পদে বহাল ছিলেন ওয়ালিদ। তিনি ১৯৬৪ সালে কূটনীতিক হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করেন। সিরিয়ায় রক্তক্ষয়ী সংঘাত শুরুর এক বছর পর, ২০১২ সালে তিনি উপপ্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছিলেন।

সিরিয়া সরকারের পক্ষ থেকে তাঁর মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে স্পষ্টভাবে কিছু বলা হয়নি। তবে বেশ কিছুদিন ধরে তাঁর স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটছিল।

গত সপ্তাহে দামেস্কে শরণার্থী প্রত্যাবর্তনের এক অনুষ্ঠানে তাঁকে সর্বশেষ জনসমক্ষে দেখা গিয়েছিল। সে সময় তাঁকে বেশ দুর্বল দেখাচ্ছিল এবং অনুষ্ঠানস্থলে তাঁকে দুজনের সাহায্য নিয়ে চলতে দেখা গিয়েছিল।

বিজ্ঞাপন

২০১১ সালের আগস্টের দিকে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার অন্যতম লক্ষ্যে পরিণত হন ওয়ালিদ মুয়াল্লেম। সিরিয়ায় এর কিছুদিন আগে থেকেই সরকারবিরোধী আন্দোলন তীব্র হয়ে উঠেছিল। সে সময় আন্দোলনকারীদের দমাতে কঠোর হয়েছিল সিরিয়ার সরকার।

সিরিয়ার হয়ে ৫০ বছর পররাষ্ট্র দপ্তরের হয়ে কাজ করার সময়ে ওয়ালিদ মুয়াল্লেম তানজানিয়া, সৌদি আরব, স্পেন ও যুক্তরাজ্যের মতো দেশে দায়িত্ব পালন করেছেন।

প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের বাবা ক্ষমতায় আসার পাঁচ বছরের মাথায় ১৯৭৫ সালে তাঁকে রোমানিয়ায় রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। নব্বইয়ের দশকে সিরিয়ার হয়ে ওয়াশিংটনে দূতিয়ালির কাজ করেছিলেন ওয়ালিদ। ওই সময়ে ইসরায়েলের সঙ্গে শান্তি আলোচনার নেতৃত্বেও ছিলেন তিনি।

মন্তব্য পড়ুন 0