default-image

থাইল্যান্ডের অন্তর্বর্তীকালীন আইনসভা বিদেশিদের জন্য সারোগেসি সেবা নিষিদ্ধ করে একটি আইন করেছে। এর ফলে দেশটিতে ‘গর্ভ ভাড়া’ দেওয়ার শিল্প বন্ধ হবে। এ সেবা পেতে আগ্রহী বিদেশি পর্যটকেরা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এ দেশটিতে বেশি আসতেন।

সারোগেসি সন্তান ধারণের একটি পদ্ধতি। এ ক্ষেত্রে গর্ভধারণে অক্ষম একজন নারীর ভ্রূণ অন্য একজন নারী নিজের গর্ভে ধারণ করে সন্তান জন্ম দেন। ভ্রূণ থেকে সন্তান জন্মানো পর্যন্ত মাঝখানের কাজটি সম্পন্ন হয় অপর একজন নারীর গর্ভে।‘সারোগেট মাদার’ কার্যত গর্ভ ভাড়া দেওয়ার এক পেশা।

আজ শুক্রবার রয়টার্সের খবরে জানানো হয়, গত বছর থাইল্যান্ডে বেশ কয়েকটি সারোগেসি কেলেঙ্কারির ঘটনা ঘটেছে। অস্ট্রেলিয়ার এক দম্পতি থাইল্যান্ডে এক নারীর গর্ভ ভাড়া নেন। ওই গর্ভ থেকে দুটি যমজ মেয়ে শিশু জন্ম নেয়। কিন্তু ওই দম্পতি শিশু দুটির একটি ডাউন সিনড্রোমে আক্রান্ত হওয়ায় তাকে না নিয়ে সুস্থ শিশুটিকে নিয়ে দেশে ফিরে যায়।

এ ছাড়া এক জাপানি পুরুষ থাইল্যান্ডে গর্ভ ভাড়া নিয়ে অন্তত ১৬টি শিশুর বাবা হন। এ কারণে স্থানীয় পত্রিকাগুলো সারোগেসিকে ‘শিশু জন্ম দেওয়ার কারখানা’ হিসেবে অভিহিত করে।

গত আগস্টে দেশটির পার্লামেন্ট বাণিজ্যিক উদ্দেশে সোরোগেসিকে অপরাধ হিসেবে উল্লেখ করে আইনের খসড়া তৈরি করে। গত নভেম্বরে খসড়াটি পাস হয়। এরপর গতকাল বৃহস্পতিবার খসড়াটি আইনে পরিণত হয়।

থাইল্যান্ডের জাতীয় আইন পরিষদের এক সদস্য ওয়ানলপ টানকানানুর রয়টার্সকে বলেন, থাই নারীদের গর্ভ যেন ‘বিশ্বের গর্ভে’ পরিণত না হয়, এ উদ্দেশ্যে আইনটি করা হয়েছে। আইনে বাণিজ্যিকভাবে সারোগেসি সেবা পেতে আগ্রহী বিদেশি দম্পতিদের থাইল্যান্ডে আসা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন