default-image

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শনাক্তের হার এখনো ঊর্ধ্বমুখী। বিশ্বের করোনার পরিস্থিতির খোঁজখবর রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারসের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বিশ্বে গতকাল সোমবার পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ছিল ১৪ কোটি ২১ লাখ ১৩ হাজার ৭২০ জন। মৃত্যু ৩০ লাখ ৩৫ হাজার ১৪৫ জন। তবে ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১২ কোটি ৬ লাখ ৬৩ হাজার ২৯ জন। করোনা সংক্রমণে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে গতকাল পর্যন্ত ৫ লাখ ৮১ হাজার ৬৮ জনের প্রাণ নিয়েছে এই মহামারি। এ ছাড়া করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩ কোটি ২৪ লাখ ৬ হাজার ৭৫৩ জনের।

যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ভারত। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ। ভারতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের নতুন রেকর্ড হয়েছে। দেশটিতে এক দিনে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন ২ লাখ ৭৩ হাজার ৮১০ জন। মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৬১৯ জনের। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দিল্লিতে গতকাল সোমবার রাত ১০টা থেকে ছয় দিনের লকডাউন শুরু হয়েছে। ভারতের এনডিটিভি জানায়, মহারাষ্ট্রে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি। রাজ্যের হাসপাতালগুলোয় পর্যাপ্ত অক্সিজেন সরবরাহেরও ব্যবস্থা নেই। মহারাষ্ট্র, দিল্লি ও কর্ণাটকে ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। বেঙ্গালুরুতেও এক দিনে করোনায় সর্বোচ্চ সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। বিহার, রাজস্থান, তামিলনাড়ু ও মণিপুরে নতুন করে বিধিনিষেধ ঘোষণা করা হয়েছে। রাত ৯টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত কারফিউ জারি করা হয়েছে। শপিং মল, স্কুল, সিনেমা হল ও ধর্মীয় উপাসনাকেন্দ্রগুলো বিহারে ১৫ মে পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। তবে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এখনই লকডাউন হচ্ছে না। আজ মঙ্গলবার থেকে রাজ্যের সব বিদ্যালয় গরমকালের ছুটি ঘোষণা করেছে। সেই সঙ্গে রাজ্যে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে বাড়ানো হয়েছে করোনার বেড। রাজ্যের ২০০টি সেফহোমে ১১ হাজার বেডের সংস্থান করা হয়েছে। সরকারি ১০০টি ও বেসরকারি ৫৮টি হাপাতালকে নতুন করে করোনা হাসপাতালে রূপান্তর করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে থাইল্যান্ডে নতুন করে ১ হাজার ৩৯০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। টানা ছয় দিন ক্রমাগত বাড়ার পর গতকাল সেখানে সংক্রমণ কিছুটা কমেছে। দেশটিতে গতকাল মারা গেছেন ৩ জন। দেশটিতে এ নিয়ে ৪৩ হাজার ৭৪২ জনের করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে এবং মৃত্যু হয়েছে ১০৪ জনের। ভারত ছাড়াও রাশিয়া, পোল্যান্ড ও ইরানের সংক্রমণ বাড়ছে। তবে সংক্রমণে ভারতের পরেই রয়েছে ব্রাজিল। দেশটিতে এখন পর্যন্ত প্রায় ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৪৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

রয়টার্স বলছে, ইউরোপের দেশগুলো করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে টিকাদান কর্মসূচির ওপর জোর দিচ্ছে। এ কারণে বায়োএনটেক ও ফাইজারের বাড়তি ১০ কোটি ডোজ টিকার ফরমাশ দিয়েছে। ফ্রান্সে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউনের মধ্যেও হাসপাতালগুলোর নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্র ভরে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রে অর্ধেকের বেশি প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ করোনার এক ডোজ টিকা পেয়েছেন। কানাডায় করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় প্রতিরোধ ব্যবস্থা হিসেবে কয়েক বিলিয়ন ডলার পুনর্বাসন পদক্ষেপ নিচ্ছে। জাপানেও করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। দেশটির কয়েকটি অঞ্চলে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন