default-image

ভিয়েতনামে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে হতাহতের সংখ্যা বাড়ছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, দুর্যোগে অন্তত ২৫ জন প্রাণ হারিয়েছেন। ঘূর্ণিঝড় মোলাভি ও প্রবল বৃষ্টিতে সৃষ্ট ভূমিধসে এখনো অনেকে নিখোঁজ রয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার হতাহত ব্যক্তিদের উদ্ধারে সেনাবাহিনী ও ভারী যন্ত্রপাতি ব্যবহার শুরু করে ভিয়েতনাম। গত এক দশকের মধ্যে ঘূর্ণিঝড় মোলাভিকে এই অঞ্চলের সবচেয়ে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় বলা হচ্ছে।
গতকাল বুধবার ভিয়েতনামের কুয়ান নাম রাজ্যের প্রত্যন্ত অঞ্চলে সৃষ্ট ভূমিধসে ১৩ জন মারা গেছেন। নিখোঁজ রয়েছেন ৪০ জন। বাজে আবহাওয়ার জন্য সেখানে উদ্ধারকাজ চালানো যাচ্ছে না। দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, ভূমিধস ছাড়াও ঘূর্ণিঝড়ে সাগরে ১২ জেলে মারা গেছেন।

বিজ্ঞাপন

দেশটির উপপ্রধানমন্ত্রী ট্রিনথ ডিন ডুং বলেছেন, ‘আমরা ঘূর্ণিঝড়ের পথের পূর্বাভাস বলতে পারি। কিন্তু ভূমিধসের বিষয়ে আগাম বলতে পারি না। ওই রাস্তা কাদায় ভর্তি। এখনো সেখানে ব্যাপক বৃষ্টি হচ্ছে। এর মধ্যেই দ্রুত উদ্ধারকাজ চালানো হচ্ছে।’
রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলা হচ্ছে, আজ বৃহস্পতিবার ১২ জেলের মৃতদেহ পাওয়া গেছে। সাগরে তাঁদের নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে। এখনো ১৪ জন নিখোঁজ রয়েছেন। নৌবাহিনীর দুটি জাহাজ উদ্ধারকাজ চালাচ্ছে।

অক্টোবরের শুরু থেকেই ঝড়, ভারী বৃষ্টি ও বন্যার মুখে পড়েছে ভিয়েতনাম। এতে ১০ লাখের বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।
ভিয়েতনাম সরকার বলছে, ঘূর্ণিঝড় মোলাভির ফলে কয়েক লাখ মানুষ বিদ্যুৎহীন অবস্থায় পড়েছেন। ৫৬ হাজার ঘরবাড়ির ক্ষতি হয়েছে। গতকাল বুধবার ভিয়েতনামে আঘাত হানার পর এটি দুর্বল হয়ে লাওসের দিকে যাচ্ছে। এর আগে এটি ফিলিপাইনে আঘাত হেনেছিল। সেখানে ১৬ জন মারা গেছেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0