বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জাপানের সংবাদমাধ্যমের নির্বাচন-পূর্ব বিশ্লেষণ এবং একাধিক জনমত জরিপ এর আগে ইঙ্গিত দিয়েছিল যে বিপর্যয় এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব হলেও সংসদীয় আসনের বড় একটি অংশ ক্ষমতাসীন দল সম্ভবত ধরে রাখতে পারবে না। ভোট গণনার পর প্রাথমিক ফলাফল বলছে, সে রকম বড় ধরনের কোনো বিপর্যয় এলডিপির জন্য দেখা দিচ্ছে না। ফলে দলের ভেতরে প্রধানমন্ত্রীকে কেন্দ্র করে দেখা দেওয়া সংশয় আপাতত কিশিদার ভবিষ্যৎ হয়তো বিপন্ন করবে না।

রোববারের নির্বাচনে ভোট-পরবর্তী জরিপ ও প্রাথমিক ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, অল্প কয়েকটি আসনের ভোট গণনা শেষ না হলেও ক্ষমতাসীন এলডিপি এবং সরকারের অংশীদার কোমেই পার্টি ৪৬৫ আসনবিশিষ্ট পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে সম্মিলিতভাবে অন্তত ২৮৬টি আসন লাভ করতে যাচ্ছে। জোট সরকারের জন্য এককভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণের সুযোগ এই সংখ্যাগরিষ্ঠতা করে দেবে। বিগত সংসদে জোটের মোট আসন ছিল ৩০৫টি।

অন্যদিকে বিরোধী জোট আসনসংখ্যা কিছুটা বাড়িয়ে নিতে সক্ষম হলেও প্রধান বিরোধী দল সাংবিধানিক গণতন্ত্রী পার্টি আগের ১১০টি আসন ধরে রাখতে সক্ষম হয়নি। ফলে বিরোধী দলের নেতা ইয়ুকিও এদানোকে দলের ভেতরে সমালোচনার মুখে পড়তে হতে পারে। এবারের নির্বাচনে অপ্রত্যাশিত সাফল্য পেয়েছে মূলত ওসাকা ও পশ্চিম জাপানভিত্তিক দল জাপান ইনোভেশন পার্টি, জাপানি ভাষায় যে দলটি নিপ্পন ইশিন নামে পরিচিত। পূর্ববর্তী সংসদে দলের আসনসংখ্যা ছিল ১১। এবার তা বেড়ে হচ্ছে ৩৭টি। এই দল বিরোধী দলের কাতারে অবস্থান করলেও এলডিপির সঙ্গে কিছু প্রশ্নে একই অবস্থানে রয়েছে। বিশ্লেষকেরা মনে করছেন, নিপ্পন ইশিনের সাফল্য এলডিপির জন্য মাথাব্যথার কারণ হয়তো হবে না।

নির্বাচনের আগের বিভিন্ন জরিপে ভোটারদের বড় একটি অংশকে সিদ্ধান্তহীন অবস্থানে থাকতে দেখা গেছে। নির্বাচনের প্রাথমিক ফলাফল ইঙ্গিত দিচ্ছে, বিরোধী জোট তাদের অকৃষ্ট করতে সক্ষম হয়নি এবং শেষ মুহূর্তে এদের ক্ষমতাসীনদের দিকে ঝুঁকে পড়াটা এলডিপির জন্য আশীর্বাদ হয়ে দেখা দিয়েছে। এবারের নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতির হার ছিল ৫৫ দশমিক ৩৩ শতাংশ, ২০১৭ সালের নিম্নকক্ষ নির্বাচনের চেয়ে যা সামান্য বেশি। তবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে ভোটারদের মধ্যে বিরাজমান নিরুৎসাহ দূর হওয়ার ইঙ্গিত এটা দিচ্ছে না।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন