বিজ্ঞাপন

যুদ্ধের মুখে কতজন ঘর পালিয়েছে

বছরের পর বছর ধরে এ যুদ্ধে বহু মানুষ তাদের ঘরবাড়ি ছেড়েছে পালিয়েছে। অনেকে প্রতিবেশী দেশে শরণার্থী হয়েছে বা অনেকে দূরের দেশে আশ্রয় চেয়েছে। আর দেশের ভেতর থাকা বাস্তুচ্যুত লাখ লাখ আফগান মানুষকে অবর্ণনীয় কষ্ট ও ক্ষুধায় দিনাতিপাত করতে হচ্ছে।

default-image

গত বছর ৪ লাখের বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। ২০১২ সাল থেকে ৫০ লাখ মানুষ দেশ থেকে পালিয়েছে, যারা আর নিজের ঠিকানায় ফিরতে পারেনি। জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থার তথ্যমতে, বিশ্বে বাস্তুচ্যুত জনসংখ্যার দিক দিয়ে আফগানিস্তানতৃতীয়। প্রথম স্থানে রয়েছে সিরিয়ার (৬৭ লাখ) মানুষ আর দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভেনেজুয়েলার (৪০ লাখ) মানুষ।

জাতিসংঘের অফিস হিউম্যানিটারিয়ান অ্যাফেয়ার্সের তথ্যমতে, আফগানিস্তানের ৩০ শতাংশের বেশি মানুষ খাদ্যনিরাপত্তার ক্ষেত্রে জরুরি পরিস্থিতি বা সংকটাপন্ন পর্যায়ে রয়েছে।

default-image

মেয়েরা কি এখন স্কুলে যেতে পারছে

তালেবান শাসনের ইতি ঘটলে দেশটিতে নারীদের শিক্ষা ও অধিকারের কিছু ক্ষেত্রে সুস্পষ্ট পরিবর্তন ঘটে। ১৯৯৯ সালে সেখানে উচ্চমাধ্যমিকে কোনো মেয়ে শিক্ষার্থী ছিল না। আর প্রাথমিক স্কুলে এ সংখ্যা ছিল ৯ হাজার। অথচ ২০০৩ সালে মেয়ে স্কুলশিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছিল ২৪ লাখ। এ সংখ্যা এখন ৩৫ লাখ। আর সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের এক-তৃতীয়াংশ এখন নারী।

২০০৩ সালে উচ্চমাধ্যমিকে মেয়েশিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ৬ শতাংশ আর ২০১৭ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৯ শতাংশ।

কিন্তু ইউনিসেফের তথ্যমতে, এখনো দেশটিতে ৩৭ লাখ শিশু স্কুলের বাইরে। আর তাদের ৬০ শতাংশই মেয়ে। এর কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, চলমান যুদ্ধ, পর্যাপ্ত শিক্ষাব্যবস্থার অভাব ও নারী শিক্ষকের ঘাটতি।

তালেবানের ভাষ্য, তারা নারীদের শিক্ষার বিরোধী নয়; কিন্তু হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মতে, কিছু কিছু তালেবান নেতা নিজেদের নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে মূলত মেয়েদের বয়ঃসন্ধিকালের পর স্কুলে যাওয়াকে অনুমোদন দেন না।

বেড়েছে নারীদের জন্য সুযোগ-সুবিধা

default-image

আফগানিস্তানে নারীরা এখন সরকারি কর্মকাণ্ডেও অংশ নিচ্ছেন, তাঁরা রাজনৈতিক পদে আসীন হচ্ছেন এবং অনেকে ব্যবসা করছেন। ২০১৯ সাল নাগাদ এক হাজারের বেশি আফগান নারী নিজস্ব ব্যবসা শুরু করেছেন, যা তালেবান শাসন কায়েম থাকলে নিষিদ্ধ হতো।

দেশটির সংবিধানে বলা হয়েছে যে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে কমপক্ষে ২৭ শতাংশ পদ নারীদের পেতে হবে। এখন আফগান পার্লামেন্টে নারীর সংখ্যা এ অনুপাতের সামান্য বেশি, ২৪৯ আসনের মধ্যে নারী এমপি আছেন ৬৯।

জাতিসংঘ, বিশ্বব্যাংক ও অ্যামনেস্টির বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, মাত্র ৫ শতাংশ নারী কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে যায়। ২২ শতাংশ নারী কর্মজীবী। সরকারি চাকরিজীবী ২০ শতাংশ নারী। এমপিদের মধ্য ২৭ শতাংশ হচ্ছেন নারী।

জীবনধারায় কতটা পরিবর্তন এসেছে?

আফগানিস্তানে অবকাঠামো–সংক্রান্ত অনেক সমস্যা থাকলেও মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেটের ব্যবহার বাড়ছে। দেশটিতে দিন দিনই মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ছে।

২০২১ সালের জানুয়ারিতে এক হিসাবে দেখা গেছে, দেশটিতে ৮৬ লাখের বেশি লোক ইন্টারনেট সেবা ব্যবহার করছেন। সংখ্যাটি মোট জনসংখ্যার ২২ শতাংশ। এ ছাড়া লাখ লাখ লোক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করছেন।

মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যাও পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। ৬৮ শতাংশ লোক মোবাইল ফোন ব্যবহার করছেন। কিন্তু জাতিসংঘ বলছে, মোবাইল সেবায় অনেক সময়ই বিভ্রাট ঘটে এবং তা যোগাযোগের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে।

আফগানিস্তানে ব্যাংক হিসাব

default-image

আফগানিস্তানে প্রাপ্তবয়স্কদের ৮০ শতাংশেরই কোনো ব্যাংক হিসাব নেই। নিম্ন আয়ের দেশগুলোতেও এর চেয়ে বেশি মানুষের ব্যাংক হিসাব আছে। এর কারণ হিসেবে নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ ছাড়াও বিশ্বব্যাংক বলছে, ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক বিশ্বাসও প্রভাব ফেলে। আরও দুটি কারণ হলো, অর্থ খাতের ওপর লোকজনের আস্থার ও আর্থিক জ্ঞান খুব কম। অবশ্য বিশ্বব্যাংক মনে করছে, নতুন কিছু প্রকল্পের কারণে আগামী পাঁচ বছরে ব্যাংক হিসাবধারীর সংখ্যা অনেকটা বাড়বে।

গ্লোবাল ফিনডেস্ক ডেটাবেইসের বরাত দিয়ে বিসিসির জানায়, দেশটিতে ৮৫ শতাংশ মানুষের ব্যাংক হিসাব নেই। যাঁদের ব্যাংক হিসাব আছে, তাঁদের মধ্যে ২৩ শতাংশ পুরুষ ও ৭ শতাংশ নারী। অন্যদিকে পাকিস্তানে ২১ শতাংশ, ভারতে ৮০ শতাংশ ও যুক্তরাষ্ট্রে ৯৩ শতাংশ মানুষের ব্যাংক হিসাব আছে।

গ্রামীণ অর্থনীতির মূল উৎস আফিম

বিশ্বে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি আফিম উৎপাদিত হয় আফগানিস্তানে। ব্রিটিশ কর্মকর্তাদের তথ্যমতে, যুক্তরাজ্যে যে পরিমাণ হেরোইন যায়, এর ৯৫ শতাংশই আফগানিস্তান থেকে যায়।

default-image

জাতিসংঘের তথ্যমতে, গত ২০ বছরে দেশটির আফিম উৎপাদন ব্যাপক বেড়েছে। দেশটির ৩৪টি প্রদেশের ১২টি ছাড়া সব কটিতে আফিম চাষ হয়। আফিম চাষ নির্মূল কর্মসূচি নেওয়ার পরও এবং চাষিদের বিকল্প কৃষিপণ্য—ডালিম বা জাফরান—চাষে প্রণোদনা দেওয়ার পরও এই অবস্থা দেখা যায়।

তালেবানও ২০০১ সালে আফিম চাষের ওপর স্বল্পমেয়াদি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলেও এটি দিন দিন তাদেরসহ অন্যদের কাছে কোটি কোটি ডলার আয়ের উৎস হয়ে ওঠে। আফিমচাষিদের প্রায়ই বিরোধী জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোকে আয়কর দিতে হয়।

আর পপি চাষ যে বাড়ছে, তার পেছনে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা, নিরাপত্তাহীনতা এবং কর্মসংস্থানের অভাবকে প্রধান কারণ বলে মানা হয়।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন