default-image

মিয়ানমারে ফেসবুকের কিছু সেবা বাধাগ্রস্ত করা হচ্ছে। মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের তিন দিনের মাথায় আজ বৃহস্পতিবার এ কথা জানিয়েছে ফেসবুক।

ফেসবুকের এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, মিয়ানমারে ফেসবুক ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু মানুষ সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছে। এ বিষয়ে ফেসবুক অবগত আছে।

ফেসবুকের ওই মুখপাত্র আরও বলেন, ‘সংযোগ পুনঃস্থাপনের জন্য আমরা কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানাই। যাতে মিয়ানমারের জনগণ তাদের পরিবার ও বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে। যাতে তারা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেতে পারে।’

মিয়ানমারে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক বেশ জনপ্রিয়। এটি তাদের যোগাযোগের অন্যতম প্রধান মাধ্যম। শুধু তা-ই নয়, বিবৃতি দেওয়ার ক্ষেত্রে দেশটির মন্ত্রীদের প্রায়ই ফেসবুক ব্যবহার করতে দেখা গেছে।

বিজ্ঞাপন

বিশ্বজুড়ে ইন্টারনেট বিভ্রাট পর্যবেক্ষণ করে থাকে নেটব্লকস। তারা বলেছে, মিয়ানমারে ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারীরা দেশটিতে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপে ব্যবহারের ক্ষেত্র বিঘ্ন সৃষ্টি করছে। কিংবা ব্লক করেছে।

নেটব্লকস এক টুইটার পোস্টে লিখেছে, সরকারের ‘ব্লকিং’ আদেশ মেনে মিয়ানমারের ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারী একাধিক অপারেটর দেশটিতে ফেসবুকের মালিকানাধীন বিভিন্ন সেবা ব্যাহত করছে।

গত সোমবার মিয়ানমারে অভ্যুত্থান করে দেশটির সেনাবাহিনী। তারা মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নির্বাচিত সরকার উৎখাত করে ক্ষমতা দখল করে নিয়েছে। মিয়ানমারের সেনা কর্তৃপক্ষ দেশটিতে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করেছে। সু চিসহ শীর্ষ রাজনৈতিক নেতাদের তারা বন্দী করেছে। দেশটিতে অভ্যুত্থানের দিন থেকেই ইন্টারনেট পরিষেবা নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন