বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হোয়াইট হাউসের তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্র ও ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্টরা মিয়ানমারের অভ্যুত্থান নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছেন। এ ছাড়া মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকে সহিংসতা বন্ধ, সব রাজনৈতিক বন্দীকে মুক্তি ও দ্রুত গণতন্ত্রে ফেরার বিষয়ে আহ্বান জানিয়েছেন।

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী বিষয়ে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার জোট আসিয়ানকে সমর্থন জানিয়েছেন জো বাইডেন। গত মাসে আসিয়ানের বৈঠকে জান্তাপ্রধানকে নিষিদ্ধ করার পর ওই বৈঠকে অংশ নেয়নি মিয়ানমার।

মিয়ানমারে গত ১ ফেব্রুয়ারি রক্তপাতহীন অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে সেনাবাহিনী। গ্রেপ্তার করা হয় অং সান সু চিসহ তাঁর দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) শীর্ষ নেতাদের। এর পর থেকে দেশটিতে তুমুল বিক্ষোভ চলছে। স্থানীয় পর্যবেক্ষক প্রতিষ্ঠান দ্য অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্স (এএপিপি) সম্প্রতি জানিয়েছে, সেনাশাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত ১ হাজার ২২৯ জনের বেশি নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া দেশটিতে গ্রেপ্তার হয়েছেন সাড়ে ৯ হাজারের বেশি মানুষ।

স্থানীয় গণমাধ্যমের বিভিন্ন প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, বিক্ষোভকারীদের ওপর জান্তা সেনাদের সহিংস হামলার ঘটনা ঘটছে। তাদের গ্রেপ্তার করে নির্যাতন করা হচ্ছে। নির্যাতনে কমপক্ষে ১৩১ জন নিহত হয়েছেন।

জান্তা সেনা ও জাতিগত বিদ্রোহী গ্রুপগুলোর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাও বাড়ছে। এতে হাজারো মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাচ্ছেন।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন