default-image

মিয়ানমারে অভ্যুত্থানের পর থেকে এ পর্যন্ত দেশটির সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষে পাঁচ শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে। স্থানীয় পর্যবেক্ষক একটি সংস্থা আজ মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছে। খবর এএফপির।

এর মধ্যে গত শনিবার সবচেয়ে বেশি বিক্ষোভকারী সেনা অভিযানে নিহত হয়। এদিন নিহত হয়েছে ১১৪ জন। এরপরই বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে। ওয়াশিংটন মিয়ানমারের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি স্থগিত করেছে। জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস জান্তা সরকারের ওপর চাপ দিতে আহ্বান জানিয়েছেন। জান্তা সরকারের গুলিতে গতকাল সোমবারও দেশটিতে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত পাঁচ বিক্ষোভকারী।

দ্য অ্যাসিসটেন্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্স (এএপিপি) বলছে, অভ্যুত্থানের পর থেকে এ পর্যন্ত ৫১০ জন নাগরিক নিহত হয়েছে। এএপিপি সতর্কতা জারি করে বলেছে, প্রকৃত নিহত মানুষের সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে।  

বিজ্ঞাপন

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তনিও গুতেরেস এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, মানুষের প্রতি এত বেশি সহিংসতার ঘটনা মেনে নেওয়া যায় না। অনেক মানুষ সহিংসতায় প্রাণ হারাচ্ছে। তিনি বলেন, মিয়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরও বেশি ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ আগামীকাল বুধবার মিয়ানমার পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে বসবে। যুক্তরাজ্য জরুরি বৈঠকের আহ্বান জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, যুক্তরাজ্য সেনা অভ্যুত্থানের ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থান হয়েছে। দেশটির নেত্রী অং সান সু চিসহ বেশ কয়েকজন নেতাকে আটক করা হয়েছে। এরপর থেকেই ইয়াঙ্গুন, মান্দালয়সহ বিভিন্ন শহরে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভ চলছে। জান্তার চরম দমন-পীড়নের মুখেও বিক্ষোভ চলছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন