ইরানের পরমাণু কর্মসূচির অগ্রগতি নিয়ে ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের সঙ্গে দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর দৃষ্টিভঙ্গির পার্থক্য ছিল। নেতানিয়াহু জাতিসংঘে বলেছিলেন, ইরান এক বছরের মধ্যেই পারমাণবিক বোমা তৈরি করতে সক্ষম। কিন্তু মোসাদ তা মনে করত না বলে ফাঁস হওয়া তারবার্তায় তথ্য মিলেছে। খবর বিবিসির।
জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ২০১২ সালের অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে নেতানিয়াহু একটি বোমার প্রতীকী আঁকা ছবি দেখিয়ে বলেন, ইরানকে এবার থামানো উচিত। দেশটি পরের বছরেই পারমাণবিক বোমা বানাতে পারে। কিন্তু মোসাদের এক প্রতিবেদনের উল্লেখ করে আল-জাজিরা এবং দ্য গার্ডিয়ান লিখেছে, ‘ইরান তখন অস্ত্রশস্ত্র বানানোর জন্য প্রয়োজনীয় কোনো কাজ’ করছিল না।
মোসাদের ফাঁস হওয়া বেশ কয়েকটি দলিল আল-জাজিরার কাছে আছে এবং তারা সেগুলো গার্ডিয়ান পত্রিকাকে দিয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা এবং আরও কয়েকটি দেশের গোয়েন্দা সংস্থার মধ্যে এসব তথ্য বিনিময় হয়েছিল। ফাঁস হওয়া কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের মধ্যে রয়েছে: মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ সরকারি নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ফিলিস্তিনি ইসলামপন্থী সংগঠন হামাসের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছিল।
নেতানিয়াহু জাতিসংঘে দেওয়া বক্তব্যে ইরানের পরমাণু কর্মসূচির ওপর একটি ‘স্পষ্ট নিষেধাজ্ঞা’ আরোপের জন্য বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানান। কিন্তু ওই বছরেরই ২২ অক্টোবর মোসাদ যে প্রতিবেদন পাঠায়, তার সঙ্গে নেতানিয়াহুর বক্তব্যের মিল ছিল না। এতে বলা হয়, ইরান ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণের জন্য কিছু কাজ করলেও তা উচ্চপর্যায়ে পৌঁছানোর জন্য প্রস্তুত হয়নি।
বিতর্কিত পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে ছয় পরাশক্তি ইরানের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে সমঝোতায় পৌঁছানোর চেষ্টা করছে—এমন সময় ফাঁস হওয়া তারবার্তাটি প্রকাশিত হলো।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন