default-image

মিয়ানমারের বিক্ষোভে জান্তার দমন–পীড়ন দিন দিন বাড়ছে। দেশটির সেনা ও পুলিশ সদস্যরা প্রকাশ্যে বিক্ষোভকারীদের হত্যার হুমকি দিচ্ছেন। ভিডিও শেয়ারের অ্যাপ টিকটক ব্যবহার করে এমন হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

মিয়ানমারে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে নাগরিক অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন মিয়ানমার আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট (এমআইডিও)। সংগঠনটি বলেছে, বিক্ষোভকারীদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে, এমন ৮০০টি ভিডিও তারা খুঁজে পেয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী তাইকে তাইকে অং বলেন, এটা হুমকির নমুনামাত্র। সেনা ও পুলিশ সদস্যের পোশাক পরা এমন শত শত সেনা টিকটক ব্যবহার করে হুমকি দিচ্ছেন।

তবে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের পক্ষ থেকে জানতে চাইলে, মিয়ানমারের সেনা ও পুলিশ সদস্যদের এমন কর্মকাণ্ড নিয়ে সেনাবাহিনী কিংবা জান্তা সরকার কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

বিজ্ঞাপন
default-image

এমন একটি ভিডিও রয়টার্সের হাতে এসেছে। এই ভিডিওতে দেখা যায়, ক্যামেরার দিকে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র তাক করে এক সেনা বলছেন, ‘আমি আপনার কুৎসিত মুখে গুলি করব। আমি সত্যিকারের বুলেট ব্যবহার করছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি আজ রাতে শহরে টহলে বের হচ্ছি। আমি যাঁকেই দেখব, তাঁকেই গুলি করব। আপনি যদি শহীদ হতে চান, আমি আপনার ইচ্ছা পূরণ করব।’ তবে ওই সেনাসদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেনি রয়টার্স।

ফেসবুক, টুইটারের মতো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো ইতিমধ্যে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। ফলে এমন ভয় দেখানো বা ঘৃণা ছড়ানোর মতো কনটেন্ট টিকটকে প্রচার হচ্ছে। যদিও টিকটকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সহিংসতা উসকে দেয়, এমন কোনো ভিডিও কনটেন্ট তারা প্রচার করবে না।

মিয়ানমারে এ ঘটনা এমন সময়ে সামনে এল, যখন গতকাল বুধবার ১ দিনেই নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের গুলিতে কমপক্ষে ৩৮ জন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন।
মিয়ানমারের সেনাবাহিনী গত ১ ফেব্রুয়ারি রক্তপাতহীন এক অভ্যুত্থানে ক্ষমতা দখল করে। তারা বন্দী করে দেশটির নেত্রী অং সান সু চিসহ তাঁর দল এনএলডির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের। এরপর দেশটিতে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভ শুরু হয়।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন