গোতাবায়া রাজাপক্ষে ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি চলতি সপ্তাহেই পদত্যাগ করার পরিকল্পনা করছেন।

দেশটির পার্লামেন্টের স্পিকার বলেছেন, আইনপ্রণেতারা ২০ জুলাই নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করবেন।

সাজিথ প্রেমাদাসা বিবিসিকে বলেছেন, তাঁর দল ও মিত্ররা এ বিষয়ে একমত হয়েছে যে প্রেসিডেন্ট পদ শূন্য ঘোষিত হলে সে পদে তাঁর মনোনয়ন জমা দেওয়া উচিত।

২০১৯ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ নিয়ে হেরেছিলেন সাজিথ প্রেমাদাসা। এখন প্রেসিডেন্ট পদ শূন্য হলে তাঁকে সেই পদে জয়ী হতে হলে শাসক জোটের এমপিদের সমর্থন দরকার পড়বে।

শ্রীলঙ্কার বর্তমান পরিস্থিতিকে বিভ্রান্ত, অনিশ্চিত ও পুরোপুরি নৈরাজ্যকর হিসেবে বর্ণনা করেছেন সাজিথ প্রেমাদাসা। তিনি বলেন, এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য প্রয়োজন ঐকমত্য, আলোচনা ও সমঝোতা।

শ্রীলঙ্কা একটি অভূতপূর্ব অর্থনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ সংকটের প্রেক্ষাপটে গত মার্চ মাসে হাজারো মানুষ রাজপথে নেমে আসেন। তাঁরা লাগাতার বিক্ষোভ দেখিয়ে আসছেন।

গত শনিবার বিক্ষোভকারীরা দেশটির প্রেসিডেন্টের বাসভবনে ঢুকে পড়েন। এর আগেই বাসভবন থেকে পালিয়ে যান প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া। বিক্ষোভকারীরা পরে প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহের বাসভবনেও অবস্থান নেন।

শনিবার রাতে স্পিকার মাহিন্দা ইয়াপা আবেবর্ধনে জানান, প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া ১৩ জুলাই পদত্যাগ করবেন বলে তাঁকে জানিয়েছেন। ১৫ জুলাই পার্লামেন্টের অধিবেশন বসবে। এর পাঁচ দিন পর নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করবে পার্লামেন্ট।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, প্রেসিডেন্ট গোতাবায়াকে গতকাল সোমবার দেশটির বন্দরনায়েক আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছের একটি বিমানঘাঁটিতে নেওয়া হয়। এদিন রাতেই তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতে যান বলে গুঞ্জন উঠেছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন