মন্ত্রিসভার নিরাপত্তা বিভাগের পক্ষ থেকে এ–সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এরপর পুলিশের পক্ষ থেকে তালিকা করা হচ্ছে, কারা এই দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া সংসদ সদস্যদের মধ্যে কারা এই নিরাপত্তা নিতে চান, তাঁদেরও তালিকা চাওয়া হয়েছে।

এর আগে গত সোমবার সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের ওপর হামলা চালান মাহিন্দা রাজাপক্ষের সমর্থকেরা। এ হামলার পর পাল্টা হামলা শুরু হয়। ওই সহিংসতার সময় এক সংসদ সদস্যের গুলিতে এক বিক্ষোভকারী নিহত হন এবং একজন আহত হন। এরপর সেই সংসদ সদস্য আত্মহত্যা করেন। পরে পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে গেলে দেশটির সেনাসদস্য ও পুলিশকে গুলি চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়। তবে গত বুধবার থেকে পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ নিতে শুরু করেছে নিরাপত্তা বাহিনী।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন