সাত দশক পর প্রত্যাবর্তন

গ্রিন ব্রডবিল পাখি।
ছবি: টুইটার

একসময় বন–জঙ্গলে সরব উপস্থিতি ছিল পাখিটির। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সংখ্যা কমতে থাকে। একসময় বিলুপ্ত হয়ে যায়। কয়েক দশক আর দেখা পাওয়া যায়নি। অবশেষে প্রকৃতিতে বিলুপ্ত পাখিটির সুরেলা কণ্ঠ ফিরেছে। সিঙ্গাপুরের একটি দ্বীপে আবারও দেখা মিলেছে সেটির। ছোট্ট পাখিটির নাম গ্রিন ব্রডবিল।

গত শতকের চল্লিশের দশকে বোর্নিও, সুমাত্রা ও মালয় উপদ্বীপের প্রকৃতিতে অবাধ বিচরণ ছিল গ্রিন ব্রডবিলের। দেখতে টুকটুকে সবুজ, ছোট্ট ও সুরেলা পাখিটির যেন নামের সঙ্গে অদ্ভুত মিল। গাঢ় সবুজ আর কালো রঙের মিশেলে পাখিটির পালক যে কারও নজর কাড়বে। ঘন কালো, ছোট্ট দুটো চোখ সবুজের সঙ্গে মিশে যেন আলাদা আভিজাত্য এনে দিয়েছে গ্রিন ব্রডবিলের গায়ে।

তবে চল্লিশের দশকের পর থেকে পাখিটির সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে কমতে শুরু করে। একপর্যায়ে অনেক খুঁজেও দেখা মেলেনি। ফলে সাত দশক আগেই বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয় পাখিটিকে। হঠাৎ সিঙ্গাপুরের প্রকৃতিতে ফিরে এসেছে বিলুপ্ত সেই গ্রিন ব্রডবিল। সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল পার্কস বোর্ডের সংরক্ষণবিষয়ক দলের পরিচালক লিম লিয়াং জিম জানান, গত ২৭ জুন সিঙ্গাপুরের মূল ভূখণ্ডের উত্তর–পূর্বে পুলাউ উবিন দ্বীপের প্রাকৃতিক পরিবেশে একটি গ্রিন ব্রডবিল দেখা গেছে।

স্থানীয় গণমাধ্যমের বরাতে গতকাল মঙ্গলবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইনডিপেনডেন্ট–এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া পাখিটি নতুন করে শনাক্ত করেছেন জোয়সি রি মিসৌরিয়ের। তিনি পেশায় পাখি পর্যবেক্ষণকারী। তিনি ছাড়াও স্থানীয় কয়েকজন পাখি পর্যবেক্ষণকারী বলেছেন, তাঁরা এর আগে ওই এলাকায় এমন পাখি দেখেননি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নতুন করে শনাক্ত হওয়া গ্রিন ব্রডবিলটি পুরুষ। এটির গাঢ় সবুজ পালকের ওপরে চোখের পাশে কালো ছোপ, ডানায় কালো দাগ রয়েছে। ছবিতে এসব দেখে বোঝা গেছে, এটি পূর্ণাঙ্গ বয়সের পুরুষ পাখি। মেয়ে গ্রিন ব্রডবিলের ডানায় সচরাচর কালো ছোপ দেখা যায় না।

এত বছর পরে পাখিটি কোথা থেকে পুলাউ উবিন দ্বীপে এসেছে, সে বিষয়ে নিশ্চিত নন বিশেষজ্ঞরা।