default-image

ইয়েমেনের সাবেক প্রেসিডেন্ট আবদ-রাব্বু মনসুর হাদি গতকাল শনিবার রাজধানী সানার বাসভবন ছেড়ে গেছেন। সম্প্রতি ক্ষমতা দখলকারী শিয়া হুতি মিলিশিয়া বাহিনী তাঁকে কয়েক সপ্তাহ ধরে গৃহবন্দী করে রেখেছিল। মনসুর হাদি নিজ শহর এডেনের উদ্দেশে রওনা হন বলে প্রত্যক্ষদর্শী ও একটি রাজনৈতিক সূত্র জানিয়েছে। খবর রয়টার্সের।
সাবেক প্রেসিডেন্ট মনসুর হাদিকে অন্তরীণ অবস্থা থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে কি না, তাৎক্ষণিকভাবে সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। হুতিরা গত মাসে তাঁর বাসভবন এবং প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ অবরুদ্ধ করে রাখে। একপর্যায়ে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন হাদি।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, মনসুর হাদি চলে যাওয়ার পর তাঁর সানার বাসভবনে লুটপাট হয়েছে।
ক্ষমতা হস্তান্তরের লক্ষ্যে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে হুতি মিলিশিয়া এবং ইয়েমেনের অন্য রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে গত শুক্রবার একটি চুক্তি হয়েছে। ফলে দেশটিতে একটি অন্তর্বর্তী পরিষদ গঠিত হতে যাচ্ছে।
এদিকে হুতি মিলিশিয়ারা ইয়েমেনের মধ্যাঞ্চলীয় ইব শহরে গতকাল সকালে বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এতে একজন নিহত ও আরেকজন আহত হয়। ওই ঘটনার পর হাজার হাজার মানুষ নতুন করে বিক্ষোভ শুরু করে। জবাবে হুতিরা আরও বেশি মিলিশিয়া সদস্য মোতায়েন করে।
ইয়েমেনে চলমান অস্থিরতা নিয়ে পশ্চিমা দেশগুলো শঙ্কিত হয়ে পড়েছে। তাদের আশঙ্কা, এই সুযোগে সেখানে সক্রিয় জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদার আরব উপদ্বীপ শাখা (একিউএপি) আরও তৎপর হয়ে বিদেশে নতুন নতুন হামলা চালাতে পারে।
শুক্রবার ইয়েমেনের শাওবওয়া প্রদেশে মার্কিন চালকবিহীন বিমান (ড্রোন) হামলায় একটি মোটরগাড়ি ধ্বংস হয়। এর যাত্রীরা একিউএপির সদস্য ছিলেন বলে ধারণা করা হয়। এ হামলায় অন্তত তিনজন নিহত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র জঙ্গিদের লক্ষ্য করে ড্রোন হামলা চালানোর কথা স্বীকার করলেও কোনো নির্দিষ্ট ঘটনার ব্যাপারে মন্তব্য করেনি।
মার্কিন ড্রোন হামলায় কখনো কখনো বেসামরিক লোকজনও প্রাণ হারায়। এ ধরনের ঘটনায় ইয়েমেনের অধিকাংশ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে। ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট মনসুর হাদি একিউএপির বিরুদ্ধে এসব ড্রোন হামলার সমর্থক ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন