সিডনির ডার্লি হারবার
সিডনির ডার্লি হারবারফাইল ছবি: প্রথম আলো

আমেরিকা ও ইউরোপের দেশগুলোতে শীত আসছে। শীত আসি আসি করছে এশিয়ার দেশগুলোতেও। এমন পরিস্থিতিতে অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলস প্রদেশের সিডনি পার করল নভেম্বরের উষ্ণতম রাত। সিডনিতে গতকাল শনিবার রাতের তাপমাত্রা ছিল ২৫ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর দিনের তাপমাত্রা ছিল ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, আজ রোববারও সিডনিতে দিনের তাপমাত্রা ছিল ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সিডনি ছাড়াও দেশটির সাউথ অস্ট্রেলিয়া ও ভিক্টোরিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলের তাপমাত্রা বেড়েছে। সিডনিতে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় নিউ সাউথ ওয়েলসের অগ্নিনির্বাপণ বিভাগ সেখানে ঘরের বাইরে আগুন জ্বালানোর ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। ওই অঞ্চলে এখনো দাবানলে পুড়ছে বিভিন্ন এলাকা। অগ্নিনির্বাপণের কর্মীরা সেই আগুন নেভাতে হিমশিম খাচ্ছেন।

দেশটির আবহাওয়া দপ্তরের কর্মকর্তা অ্যান্ড্রু ওয়াটকিনস বলেছেন, নানা কারণে এবারের নভেম্বর মাস বেশ অস্বাভাবিকতার জন্ম দিয়েছে। অস্ট্রেলিয়ায় স্বাভাবিকভাবে যে পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়, এবার তার অর্ধেক হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, এবারের নভেম্বর হয়তো উষ্ণতার দিক থেকে আগের সব রেকর্ড ভেঙে দিতে পারে।

বিজ্ঞাপন

অস্ট্রেলিয়ার আবহাওয়া দপ্তরের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, নিউ সাইথ ওয়েলসের উত্তরাঞ্চল এবং কুইন্সল্যান্ডের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের কিছু অঞ্চলে আগামী ছয় দিন দাবদাহ থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

গত মৌসুমে অস্ট্রেলিয়ার গ্রীষ্মকাল ছিল তুলনামূলকভাবে উষ্ণ। গ্রীষ্মকাল চলেছিল অনেকদিন ধরে। এ কারণে ওই সময়কে তখন ‘ব্ল্যাক সামার’ বলে অভিহিত করেছিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। গত মৌসুমে অস্ট্রেলিয়ার প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ হেক্টর এলাকা দাবানলে পুড়ে গিয়েছিল। তাতে ৩৩ জনের মৃত্যু হয়। মারা গিয়েছিল প্রায় ১০০ কোটি প্রাণী।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন