সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের আদি শহর কারদাহায় এক আত্মঘাতী বোমা হামলায় চারজন নিহত হয়েছে। অপ্রত্যাশিত ওই হামলার মাধ্যমে এই প্রথমবারের মতো দেশটির চলমান গৃহযুদ্ধ বাশারদের নিজ শহরকে স্পর্শ করল। একটি পর্যবেক্ষক সংগঠন এ কথা জানিয়েছে।
যুক্তরাজ্যভিত্তিক পর্যবেক্ষক সংগঠন সিরিয়ার অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটসের পরিচালক রামি আবদেল রাহমান বলেন, বিস্ফোরকসহ এক লোক অ্যাম্বুলেন্স চালিয়ে শহরের একটি হাসপাতালের পার্কিংয়ে প্রবেশ করেন। তাঁর সঙ্গে অ্যাম্বুলেন্সে আরেকজন ছিলেন। ওই হামলায় চারজন নিহত হয়।
সিরিয়ায় ২০১১ সালে গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর কারদাহার কেন্দ্রস্থলে এই প্রথম কোনো বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটল।
অবজারভেটরির রামি আবদেল রহমান বলেন, ওই হামলায় হাসপাতালের একজন সেবিকাসহ দুজন কর্মচারী ও দুজন সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন।
লাটাকিয়া প্রদেশে অবস্থিত কারদাহা শহরের উপকণ্ঠে এর আগে বেশ কয়েকবার রকেট হামলার ঘটনা ঘটে। তবে প্রদেশটিতে কয়েক দফা তীব্র লড়াই হয়েছে। কারদাহা শহরে প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের বাবা-ভাইসহ পূর্বসূরিদের কয়েকজনের সমাধি রয়েছে।
তুরস্কের অভিযান: তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী আহমেত দাভুতোগলু গতকাল রোববার জানিয়েছেন, দেশটির কমপক্ষে ৬০০ সেনাসদস্য শনিবার রাতে সীমান্ত অতিক্রম করে সিরিয়ায় ঢুকে সেখানে মোতায়েন একদল তুর্কি সেনাকে উদ্ধার করে এনেছে। প্রায় ৪০ জন তুর্কি সেনাসদস্য তুর্কি অটোমান সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা ওসমান এলের পিতামহ সুলেমান শাহর সমাধি চত্বরে পাহারায় মোতায়েন ছিলেন। ১৯২০-এর দশকের একটি চুক্তি অনুযায়ী সিরিয়ার ওই স্থানটি তুরস্কের অঞ্চল হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
প্রধানমন্ত্রী দাভুতোগলু বলেন, সমাধিস্থলে থাকা দেহাবশেষ ও পাহারারত সেনাসদস্যদের সফলভাবে তুরস্কে নিয়ে আসা হয়েছে। এক পৃথক বিবৃতিতে তুরস্কের সেনাবাহিনী জানায়, সিরিয়ার ৩০ কিলোমিটার ভেতরে মোতায়েন ওই সেনাদের মুক্ত করতে চালানো ওই অভিযানের প্রথম দিকে দুর্ঘটনায় তুরস্কের এক সেনাসদস্য নিহত হন। তবে অভিযানের সময় সংঘর্ষের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন