default-image

পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর (এলএসি) গত চার মাস ধরে যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে, তার জন্য চীনা কার্যকলাপই সম্পূর্ণভাবে দায়ী। এলএসি বরাবর যে স্থিতাবস্থা এতকাল ধরে চলে আসছিল, চীন তা একতরফাভাবে বদলাতে চায়। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব বৃহস্পতিবার সাপ্তাহিক ব্রিফিংয়ে সীমান্ত পরিস্থিতি সম্পর্কে একাধিক প্রশ্নের উত্তরে এই অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, দায়িত্বশীলতার সঙ্গে এই অবস্থার মোকাবিলা করা প্রয়োজন।

বিজ্ঞাপন

গত জুন মাস থেকে পূর্ব লাদাখের পরিস্থিতি উত্তেজনাকর। চীনের সামরিক বাহিনী একতরফাভাবে এলএসির স্থিতাবস্থা বদলাতে সচেষ্ট। ১৫ জুন সেখানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাধে। দুই তরফেই হতাহত হয়। ভারতের ২০ জন জওয়ান নিহত হন। সেই থেকে সেনা পর্যায়ে ও কূটনৈতিক স্তরে দুই পক্ষে আলোচনা অব্যাহত থাকলেও উত্তেজনা কমেনি। ইতিমধ্যে প্যাংগং লেকের দক্ষিণ অংশে স্থিতাবস্থা বদলানোর চীনা চেষ্টা ভারতীয় বাহিনী বানচাল করে দেয়। ভারতীয় সেনাদের দাবি, প্যাংগং লেকের দক্ষিণে গত সোমবার চীনা সেনারা নতুন করে স্থিতাবস্থা পরিবর্তনে উদ্যোগী হয়েছিল। ভারত তা শুধু বানচালই করে নেয়নি, সামরিক দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ ‘কালা টপ’ নিজেদের দখলে নিয়েছে। ওই ঘটনার পরেই ভারতের বিরুদ্ধে চীন সরকারিভাবে এলএসি লঙ্ঘনের অভিযোগ আনে। পূর্ব লাদাখে এমন চীনা অভিযোগ এই প্রথম।

এলএসিতে এই চলমান পরিস্থিতি নিয়ে একাধিক প্রশ্নের উত্তরে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, চীনের এই আচরণ নিছকই প্ররোচনামূলক। তাদের আচরণ দ্বিপক্ষীয় চুক্তি ও প্রটোকল লঙ্ঘন করেছে। সীমান্তে শান্তি ও সুস্থিতি নষ্ট করেছে। তিনি বলেন, অচলাবস্থার অবসান ও উত্তেজনা প্রশমনের একমাত্র উপায় আলোচনা। সেনা পর্যায় ও কূটনৈতিক স্তরের আলোচনাই একমাত্র উপায়। ভারত শান্তিপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে সব বিবাদের অবসান চায়। তিনি বলেন, সমস্যা সমাধানে দুই দেশই চুক্তিবদ্ধ। সেই বোঝাপড়া মেনেই পরিস্থিতির মোকাবিলা করা উচিত যাতে শান্তি ও সুস্থিতি রক্ষা পায়।

বিজ্ঞাপন

রাশিয়ার রাজধানী মস্কোয় সাংহাই কোঅপারেশন অর্গানাইজেশনের (এসসিও) পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলন বসছে। সেই সম্মেলনে যোগ দিতে যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। ১০ সেপ্টেম্বর ওই সম্মেলন শুরু হওয়ার কথা। সেখানে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীও উপস্থিত থাকবেন। সম্মেলনের অবকাশে ভারত-চীনের দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যে সীমান্ত উত্তেজনা নিয়ে আলোচনা হয় কি না আপাতত সেই বিষয়ে জল্পনা তীব্র।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন