default-image

সৌদি আরবের সাংবাদিক, লেখক ও সরকার-সমালোচক জামাল খাসোগির হত্যাকাণ্ড বিষয়ে দেশটিকে নিয়ে বিশ্বসম্প্রদায়ের নিষ্ক্রিয়তার নিন্দা জানিয়েছেন তাঁর তুর্কি বাগ্দত্তা হাতিজে জেংগিস। হবু স্বামী খাসোগি হত্যার ১৪ মাস পর গত মঙ্গলবার এই নিন্দা জানালেন তিনি।

ওয়াশিংটন পোস্ট-এর কলাম লেখক ও যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী সাংবাদিক খাসোগিকে ২০১৮ সালের অক্টোবরে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি দূতাবাসে খুন করেন সৌদি আরবের এজেন্টরা। তুর্কি নাগরিক হাতিজের সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে বিবাহের আগে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করতে দূতাবাসে গিয়েছিলেন খাসোগি।

এদিকে হাতিজের যেদিন ওই নিন্দা জানান, সেদিনই খাসোগি হত্যার ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিশ্ব যথেষ্ট কিছু করেনি বলে অভিযোগ করেন জাতিসংঘের বিশেষ তদন্তকারী অ্যানস ক্যালামার্ড। বিচারবহির্ভূত হত্যা সম্পর্কিত জাতিসংঘের বিশেষ এই র‍্যাপোর্টিয়ার ওই হত্যায় ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় আরও কিছু করতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে সাংবাদিকদের ক্যালামার্ড বলেন, ‘আমি মনে করি, এটি স্বীকার করে নেওয়া জরুরি, খাসোগি হত্যায় জড়িত ব্যক্তিরা বিচার থেকে রেহাই বা দায়মুক্তি পেতে পারে না। বিষয়টি নিশ্চিত করার দায়িত্ব পালনে এখন পর্যন্ত ব্যর্থ হয়েছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়।’ খাসোগি হত্যাকাণ্ডে ক্যালামার্ড আন্তর্জাতিক ফৌজদারি তদন্ত চাইলেও রিয়াদ তা প্রত্যাখ্যান করেছে।

ক্যালামার্ডের সঙ্গে সাংবাদিকদের উদ্দেশে ব্রাসেলসে বক্তব্য দেওয়ার সময় হাতিজে বলেন, ‘খাসোগি হত্যাকাণ্ড নিয়ে জাতিসংঘ গত জুনে প্রতিবেদন দেওয়ার পর এ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের তরফে এ বিষয়ে কোনো উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ দেখা যায়নি।’ তিনি আরও বলেন, ‘এটি এমন কোনো ফাইল নয় যে চাইলেই বন্ধ করে দেওয়া যায়। আমার কাছে জামাল খাসোগি হত্যা আধুনিককালের সবচেয়ে অমানবিক হত্যাকাণ্ড।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন