ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ পশ্চিম তীর থেকে গত দুই দিনে কমপক্ষে ১২০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাঁদের মধ্যে ইসলামপন্থী সংগঠন হামাসের সদস্য, শিক্ষক, সাংবাদিক ও ছাত্র রয়েছেন। এ ঘটনায় গাজা এলাকার নিয়ন্ত্রণে থাকা হামাস এবং তাদের বিরোধী পশ্চিম তীরের রামাল্লাভিত্তিক সংগঠন ফাতাহ্র মধ্যে নতুন করে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। খবর এএফপি ও আল-জাজিরার।
হামাসের মুখপাত্র সামি আবু জুহরি ওই গ্রেপ্তার অভিযানের নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের মধ্যে নিরাপত্তাব্যবস্থা সমন্বয়ের অংশ হিসেবেই এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এতে পরিস্থিতি মারাত্মকভাবে বদলে যাওয়ার ফলে বিরোধ মীমাংসার চেষ্টা ব্যাহত হবে।
১৯৯৩ সালের শান্তিচুক্তি অনুযায়ী ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ পশ্চিম তীরের নিরাপত্তা রক্ষায় গোয়েন্দা তথ্য সরবরাহও অন্যান্য উপায়ে ইসরায়েলকে সহায়তা করে। ইসরায়েলের সাম্প্রতিক সামরিক দমন অভিযানের প্রতিক্রিয়ায় এ সহযোগিতা স্থগিত রাখার জন্য ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের ওপর চাপ রয়েছে।
কর্তৃপক্ষ খালদুন মাজলুম নামে এক জ্যেষ্ঠ সাংবাদিককেও গ্রেপ্তার করেছে। তাঁর স্ত্রী ইবতিহাল মানসুর বলেন, মধ্যরাতে মাজলুমকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে গেছে ফিলিস্তিনি নিরাপত্তা বাহিনী। মানসুরের দাবি, লেখালেখির কারণেই তাঁকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়।
স্থানীয় নিরাপত্তা বাহিনীর একজন কর্মকর্তা এএফপিকে বলেন, যারা ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষকে আক্রমণ করতে চায়, তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের রাজনৈতিক দল ফাতাহ্র লোকজনই ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ নামে পরিচিত সরকারকে নিয়ন্ত্রণ করে। গাজা উপত্যকা নিয়ন্ত্রণকারী হামাসের সঙ্গে ফাতাহ্র তিক্ত বিরোধ রয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0