বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হিজবুল্লাহের সামরিক শাখার ওপর ২০০৩ সাল থেকে অস্ট্রেলিয়ার নিষেধাজ্ঞা ছিল। এবার দেশটি পুরো হিজবুল্লাহকেই ‘সন্ত্রাসী সংগঠন’ হিসেবে তালিকাভুক্ত করল।
হিজবুল্লাহর প্রতি ইরানের সমর্থন রয়েছে। লেবাননে রাজনৈতিক দল হিসেবেও হিজবুল্লাহ সক্রিয়। দেশটির সরকার, রাজনীতি ও সমাজে হিজবুল্লাহর প্রভাব তাৎপর্যপূর্ণ। তাদের সামরিক শাখাও শক্তিশালী।

১৯৯০ সালে লেবাননে গৃহযুদ্ধের সমাপ্তির পর একমাত্র হিজবুল্লাহই অস্ত্র ত্যাগ করতে অস্বীকৃতি জানায়। ইসরায়েলে একাধিক রকেট হামলা চালানোর দাবি করেছে হিজবুল্লাহ।

অস্ট্রেলিয়ার নতুন ঘোষণা অনুযায়ী, কেউ হিজবুল্লাহর কোনো শাখার সদস্য হলে, তিনি দেশটিতে (অস্ট্রেলিয়া) নিষিদ্ধ হবেন। এ ছাড়া গোষ্ঠীটিকে আর্থিকভাবে সহায়তাকারীও অস্ট্রেলিয়ার কালো তালিকাভুক্ত হবে।

অস্ট্রেলিয়ার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে ইসরায়েল। ক্যানবেরার ইসরায়েল দূতাবাস বলেছে, হিজবুল্লাহর রাজনৈতিক ও সামরিক শাখার মধ্যে কোনো তফাত নেই। সন্ত্রাসবাদের হুমকি মোকাবিলায় অস্ট্রেলিয়ার এই পদক্ষেপ জরুরি ছিল।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন