বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তানাকার জন্ম ১৯০৩ সালে। তাঁর যে বছর জন্ম ওই বছর রাইট ভ্রাতৃদ্বয় প্রথমবার আকাশে উড়েন ও ট্যুর ডি ফ্রান্সের গোড়াপত্তন ঘটে। তানাকা তাঁর জীবদ্দশায় জাপানের পাঁচটি সাম্রাজ্য দেখেছেন। পরিবারের সদস্যদের উদ্ধৃত করে সংবাদ সংস্থা কিয়োদো বলছে, এখন তিনি ১২০তম জন্মদিনের অপেক্ষায়।

প্রবীণদের সম্মানে প্রতি বছরের সেপ্টেম্বরের তৃতীয় সোমবার জাপানে রেসপেক্ট ফর দ্য এজড ডে পালন করা হয়। দিবসটির আগে গত সেপ্টেম্বরে জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রবীণদের তালিকা প্রকাশ করে। তাতে দেখা যায়, ১ বছর আগের চেয়ে ৬ হাজার ৬০ জন বেড়ে শতবর্ষী মানুষের সংখ্যা ছিল রেকর্ড ৮৬ হাজার ৫১০। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্রকাশিত ওই তালিকায় দেখা যায়, দেশটির শতবর্ষী মানুষের বেশির ভাগই নারী। শতবর্ষী পুরুষের সংখ্যা ছিল ১০ হাজারের কিছু বেশি।

১৯৬৩ সালে প্রথম বার্ষিক জরিপের সময় জাপানে শতবর্ষী মানুষ ছিল মাত্র ১৫৩ জন। ১৯৯৮ সালের মধ্যে শতবর্ষী মানুষের সংখ্যাটা ১০ হাজার ছাড়িয়ে যায়। গড় আয়ুতে জাপান বিশ্বের বয়োবৃদ্ধ মানুষের আধিক্য থাকা সমাজগুলোর একটি। দেশটিতে নারীদের গড় আয়ু ৮৭ দশমিক ৭৪ ও পুরুষের ৮১ দশমিক ৬৪ বছর।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন