বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হেনরিয়েটা ফোর বলেন, ‘আফগানিস্তানে বাল্যবিবাহ বৃদ্ধি পাচ্ছে, এমন খবরে আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। আমরা বিশ্বাসযোগ্য প্রতিবেদন পেয়েছি যে পরিবারগুলো যৌতুকের বিনিময়ে ভবিষ্যতে বিয়ের জন্য ২০ দিন বয়সী মেয়েদের প্রস্তাব দিচ্ছে।’

করোনা মহামারি, চলমান খাদ্যসংকট ও শীতের সূচনা—পরিস্থিতিকে আরও খারাপ করে তুলেছে।

২০২০ সালে আফগানিস্তানের প্রায় অর্ধেক জনসংখ্যা এতটাই দরিদ্র ছিল যে তাদের মৌলিক পুষ্টি বা বিশুদ্ধ পানির মতো প্রয়োজনীয় বিষয়ের অভাব ছিল।

হেনরিয়েটা ফোর জানান, আফগানিস্তানের অত্যন্ত ভয়াবহ অর্থনৈতিক পরিস্থিতি আরও বিপুলসংখ্যক পরিবারকে দারিদ্র্যের গভীরে ঠেলে দিচ্ছে। এ পরিস্থিতি তাদের শিশুদের দিয়ে কাজ করানো, অল্প বয়সে মেয়েদের বিয়ে দেওয়া মতো সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করছে।

হেনরিয়েটা ফোর জানান, যেহেতু বেশির ভাগ আফগান কিশোরীদের এখনো স্কুলে যেতে দেওয়া হয়নি, তাই তাদের বাল্যবিবাহের ঝুঁকি এখন আরও বেশি। বাল্যবিবাহ ও শিশুশ্রমের মতো নেতিবাচক বিষয়গুলো মোকাবিলায় শিক্ষা প্রায়ই সর্বোত্তম সুরক্ষা হিসেবে কাজ করে।

হেনরিয়েটা ফোর জানান, মেয়েদের তাড়াতাড়ি বিয়ে হলে তাদের যেসব ঝুঁকি সৃষ্টি হয়, সেগুলো সম্পর্কে লোকজনকে সচেতন করতে ইউনিসেফ তার অংশীদারদের সঙ্গে কাজ করছে।

হেনরিয়েটা ফোর আরও জানান, যে মেয়েরা তাড়াতাড়ি বিয়ে করে, তাদের স্কুলজীবন শেষ করার সম্ভাবনা কম। তাদের পারিবারিক নির্যাতনের শিকার হওয়ার আশঙ্কা বেশি। এ ধরনের মেয়েরা বড় হয়ে মানসিক ও স্বাস্থ্য সমস্যায় ভোগে।

গত ১৫ আগস্ট আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ তালেবানের হাতে যায়। তালেবানের ক্ষমতা দখলের পর দেশটির নারী ও শিশুদের নিরাপত্তা ও শিক্ষা নিয়ে গভীর উদ্বেগ সৃষ্টি হয়।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন