বৈরী আবহাওয়ার কারণে আকাশ ছিল মেঘে ঢাকা। ৩২ হাজার ফুট ওপর দিয়ে চলা বিমানের চালক তাই মেঘ এড়াতে আরও ওপর দিয়ে যেতে চাইছিলেন। তিনি ৩৮ হাজার ফুট ওপর দিয়ে বিমান চালানোর জন্য নিয়ন্ত্রণকক্ষের অনুমতি চেয়েছিলেন।

আজ রোববার বিবিসি অনলাইনের খবরে জানানো হয়, ইন্দোনেশিয়া থেকে সিঙ্গাপুরগামী এয়ার এশিয়ার নিখোঁজ বিমান সম্পর্কে এমনটাই দাবি করেছেন ইন্দোনেশিয়ার কর্মকর্তারা।

ইন্দোনেশিয়ার যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা হাদি মোস্তফা স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানান, জাভা সাগরের ওপর দিয়ে যাওয়ার সময় জাভা ও কালিমান্টান দ্বীপের মধ্যবর্তী কোনো এক স্থানে বিমানটির সঙ্গে নিয়ন্ত্রণকক্ষের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। তিনি আরও জানান, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার আগে আকাশ প্রচণ্ড মেঘলা থাকায় পাইলট গতিপথ পরিবর্তনের অনুমতি চেয়েছিলেন।

ইন্দোনেশিয়া থেকে সিঙ্গাপুরগামী এয়ার এশিয়ার কিউজেড৮৫০১ বিমানটি আজ সকালে নিখোঁজ হয়। বিমানে ১৬২ জন আরোহী ছিলেন বলে জানিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার পরিবহন মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জে এ বারাতা।

পরিবহন মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জে এ বারাতা এএফপিকে জানান, স্থানীয় সময় সকাল সাতটা ৫৫ মিনিটে জাকার্তার নিয়ন্ত্রণকক্ষের সঙ্গে ফ্লাইটির যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

বিবিসি ও এএফপির খবরে জানানো হয়, উড়োজাহাজটিতে সাতজন ক্রু ও ১৫৫ জন যাত্রী ছিলেন। যাত্রীদের মধ্যে ১৩৮ জন প্রাপ্তবয়স্ক, ১৭ শিশু রয়েছে।

রয়টার্সের খবরে জানানো হয়, নিখোঁজ যাত্রীদের মধ্যে ১৪৯ জন ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক। নিখোঁজ বাকি ছয় যাত্রীর মধ্যে তিনজন দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিক। এ ছাড়া মালয়েশিয়া, ব্রিটেন ও সিঙ্গাপুরের একজন করে নাগরিক রয়েছেন।

ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব জাভার সুবাবায়া এলাকার জুয়ানদা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে স্থানীয় সময় ভোর পাঁচটা ২০ মিনিটে উড়োজাহাজটি ছেড়ে আসে। সকাল সাড়ে আটটায় সেটির সিঙ্গাপুরে পৌঁছানোর কথা ছিল।

বিজ্ঞাপন
এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন