আজ রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে তালেবানের একটি প্রতিনিধিদল জানিয়েছে, আফগানিস্তানের ৩৯৮টি জেলার মধ্যে ২৫০টি জেলা তারা দখলে নিয়েছে। তালেবানের পক্ষে আলোচনাকারী শাহাবুদ্দিন দেলওয়ার বলেন, ‘আফগানিস্তানের প্রায় ৮৫ শতাংশ অঞ্চল’ তালেবান নিয়ন্ত্রেণ নিয়েছে।

এদিকে রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, আফগানিস্তান-তাজিকিস্তান সীমান্তের দুই–তৃতীয়াংশ এলাকাও নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে তালেবান।

তালেবান মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ বার্তা সংস্থা এএফপিকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে জানান, ‘ইরান সীমান্তবর্তী ইসলাম কালা শহর পুরোপুরি আমাদের নিয়ন্ত্রণে।’ অপর দিকে কাবুলের সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ওই এলাকা পুনরুদ্ধারে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সরকারি বাহিনী। দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র তারেক আরিয়ান এএফপিকে জানান, সীমান্তরক্ষী বাহিনীসহ আফগানিস্তানের সব বাহিনী ওই এলাকায় মোতায়েন রয়েছে। এলাকাটি পুনর্দখলে সরকারি বাহিনী সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে।

এর আগে জো বাইডেন বলেছিলেন, মার্কিন সামরিক বাহিনীর আফগান মিশন ৩১ আগস্ট শেষ হবে। লক্ষ্য অর্জন হওয়ায় প্রায় ২০ বছরের মিশন শেষ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তিনি এ কথা স্বীকার করেন, কাবুলের পক্ষে পুরো দেশের নিয়ন্ত্রণ নেওয়া ততটা সহজ হবে না।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়েছে তালেবান। তাদের মুখপাত্র সুহাইল শাহিন এএফপিকে বলেন, নির্ধারিত সময়ের আগেই যুক্তরাষ্ট্র ও বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের ঘটনা ইতিবাচক।

জটিল ভবিষ্যতের কথা স্বীকার করে আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি জানিয়েছেন, এই পরিস্থিতি তাঁরা সামাল দিতে পারবেন। কাবুলে এক বক্তৃতায় তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি আমরা খুবই জটিল পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছি। আল্লাহ আমাদের সঙ্গে আছেন, বিজয় আমাদের হবেই।’