ইসরায়েলি বাহিনীর বিমান হামলার পর গাজার একটি ভবন থেকে ধোঁয়া উঠছে
ছবি: এএফপি

গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলি বাহিনীর বিমান হামলায় আজ শনিবার আরও দুই ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। জবাবে তেল আবিবসহ ইসরায়েলের বিভিন্ন স্থাপনা লক্ষ্য করে রকেট ছুড়েছে স্থানীয় সশস্ত্র গোষ্ঠী। আগের দিন গতকাল শুক্রবার ইসরায়েলি হামলায় ১৫ ফিলিস্তিনি নিহত হন। খবর আল–জাজিরার

ফিলিস্তিনের ইসলামিক জিহাদ মুভমেন্টের সামরিক শাখা আল-কুদস ব্রিগেড জানিয়েছে, গাজায় হামলার প্রতিবাদে ইসরায়েলের বেশ কয়েকটি শহর ও বিভিন্ন সামরিক স্থাপনা লক্ষ্য করে রকেট ও মর্টার হামলা চালিয়েছে তারা।

ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠীটি বলেছে, তেল আবিব, বেন গুরিয়ন বিমানবন্দর, আশদাদ, বীরসেবা, আশকেলন, নেতিভত ও ডেরতে ৬০টি রকেট ছুড়েছে তারা।

ইসরায়েলি বিমান হামলার এক ঘটনায় আজ পশ্চিম গাজার একটি বাড়ি বিধ্বস্ত হয়। নাদিয়া শামাল্লাকাহ নামের এক গৃহিণী বলেন, সকালে পরিবারের সবাই নাশতা করছিলেন। এ সময় প্রতিবেশীরা এসে দ্রুত ঘর খালি করে দিতে বলেন।

নাদিয়া শামাল্লাকাহ বলেন, ‘আমরা দ্রুত বাড়ি থেকে বের হয়ে যাই। এরপর বিমান হামলায় আমাদের ঘর ও স্তূপ করে রাখা শস্য ধ্বংস হয়ে যায়। এখন তিন সন্তানকে নিয়ে হাসপাতালে যেতে হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা সবাই কৃষক। এই এলাকায় কোনো যোদ্ধা থাকে না।’

আরও পড়ুন

গাজায় ইসরায়েলি বাহিনীর হামলা, ১৫ জন নিহতের দাবি

এদিকে বিমান হামলায় প্রাণহানির ঘটনায় সৃষ্ট উত্তেজনা প্রশমনে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনির মধ্যে মধ্যস্থতার চেষ্টা করছে মিসর। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, গাজায় মানুষের জীবন ও সম্পদ রক্ষার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এ জন্য দুই পক্ষের সঙ্গেই নিবিড় যোগাযোগ রাখছে কায়রো। বিবৃতিতে বিস্তারিত আর কিছু বলা হয়নি।