default-image

করোনাভাইরাস মহামারিতে পুরো বিশ্বই সন্ত্রস্ত। কিন্তু এই ভাইরাসের উৎপত্তি প্রাকৃতিকভাবে না গবেষণাগারে, তা নিয়ে বিতর্ক এখনও চলছে। এরই মধ্যে চীনের এক ভাইরাস বিশেষজ্ঞ দাবি করেছেন, উহানে সরকারনিয়ন্ত্রিত একটি গবেষণাগারে এই ভাইরাস সৃষ্টি করা হয়েছে। ব্রিটিশ টিভি চ্যানেল আইটিভির ‘লুজ উইমেন’ নামের একটি টক শো অনুষ্ঠানে তিনি এ দাবি করেন। ভারতের সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনের ওই বিশেষজ্ঞের নাম লি মেং ইয়ান। করোনাভাইরাস যখন উহানে ছড়িয়ে পড়ে, তখন সেটিকে ‘নতুন নিউমোনিয়া’ হিসেবে মনে করা হচ্ছিল। সেটা তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন ইয়ান। চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকেই ভাইরাসটি প্রথমে ছড়িয়ে পড়ে।

ইয়ান বলেন, করোনাভাইরাসের বিষয়ে তদন্তের সময় এই গুপ্ত কার্যক্রমের বিষয়টি তিনি খুঁজে পান। চিকিৎসক লি মেং ইয়ান হংকং স্কুল অব পাবলিক হেলথের ভাইরোলজি ও ইমিনোলজি বিশেষজ্ঞ ছিলেন। তিনি বলেন, চীনে ‘নতুন নিউমোনিয়ার’ ওপর দুটি গবেষণা করেন তিনি। প্রথমটি হয় গত ডিসেম্বরে আর দ্বিতীয়টি জানুয়ারির শুরুর দিকে। এরপর তিনি পালিয়ে হংকং থেকে যুক্তরাষ্ট্রে এসে আশ্রয় নেন।
ইয়ান বলেন, ‘আমি আমার গবেষণায় পাওয়া তথ্য আমার তত্ত্বাবধানকারী কর্মকর্তার কাছে জমা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। তিনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) একজন পরামর্শক ছিলেন। এ বিষয়ে ডব্লিউএইচও ও আমার তত্ত্বাবধানকারী কর্মকর্তার কাছ থেকে কোনো সাড়া পাইনি। প্রত্যেকে আমাকে সতর্ক করেছিলেন, সীমা অতিক্রম করবেন না, চুপ থাকুন।’

বিজ্ঞাপন
default-image

চীনের সরকার ও ডব্লিউএইচও—উভয়ের বিরুদ্ধে করোনাভাইরাস মহামারির প্রাদুর্ভাবের ভয়াবহতা লুকানোর অভিযোগ করেছে যুক্তরাষ্ট্রসহ বেশ কিছু দেশ। যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলের বিজ্ঞানীরা দাবিও করেছেন, প্রাকৃতিকভাবে নয়, উহানের সরকারি গবেষণাগার থেকেই ছড়িয়েছে করোনাভাইরাস। যদিও এমন দাবির বিষয়ে তাঁরা তথ্যপ্রমাণ হাজির করতে পারেননি। চীন ও ডব্লিউএইচও এই দাবি অস্বীকার করে বলেছে, এটা প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্ট। এ নিয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়। এমনকি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলোও উহান থেকে করোনা ছড়ানোর কোনো তথ্যপ্রমাণ দেখাতে পারেনি।

চিকিৎসক ইয়ান প্রকাশ করেন, গবেষণার জন্য তিনি যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত চীনের এক বিখ্যাত ইউটিউবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তখন তিনি জানান, প্রথম দিকে চীনের কমিউনিস্ট পার্টি কোভিড-১৯ সংকট লুকাচ্ছিল। কিন্তু ভাইরাসটি মানুষ থেকে মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। ওই সময় চিকিৎসক ইয়ান আরও বিস্ময়কর তথ্য প্রকাশ করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ভাইরাসটি অনেক বেশি সংক্রামক। শিগগিরই এটি সারা দেশে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তিনি আরও বলেন, ‘ভাইরাসটি আদতে প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্টি হয়নি। এটা উহানে চীনের সরকারনিয়ন্ত্রিত একটি গবেষণাগার থেকে এটি সৃষ্টি, যেটি সেনাবাহিনী পরিচালনা করে।’

এই তথ্যের বিষয়ে বৈজ্ঞানিক কোনো প্রমাণ আছে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে ইয়ান বলেন, চীনের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের তথ্য আছে তাঁর কাছে। এগুলো সবই সত্য। এই বিষয়ে সারা বিশ্বের শীর্ষ কিছু বিজ্ঞানীকে নিয়ে একটি বৈজ্ঞানিক প্রতিবেদন তৈরি ও প্রকাশে কাজ করছেন তিনি।

মন্তব্য পড়ুন 0