বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওই ঘটনার পর অনেক দিন জনসমক্ষে না আসায় গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে, জ্যাক মা নিখোঁজ হয়েছেন। তবে এক সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছে, গত বছরের অক্টোবরের ওই ঘটনার পর প্রথমবার জ্যাক মা এখন এশিয়ার বাণিজ্যিক কেন্দ্র হংকং সফরে রয়েছেন।এ বিষয়ে জানতে রয়টার্সের পক্ষ থেকে আলিবাবার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। তবে সাড়া মেলেনি। রয়টার্স বলছে, যখন জানতে চাওয়া হয়েছে, তখন অবশ্য কোম্পানির ব্যবসায়িক কর্মঘণ্টা শেষ হয়েছে। এ কারণেই হয়তো আলিবাবার কাছ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো সাড়া মেলেনি। তবে জ্যাক মা যে হংকংয়ে—এ তথ্য এসেছে কোম্পানিটির দুজন কর্মীর কাছ থেকেই। তাঁরা তাঁদের পরিচয় প্রকাশে অপারগতা জানিয়েছেন।

একসময় চীনের সবচেয়ে বিখ্যাত ও স্পষ্টভাষী উদ্যোক্তা জ্যাক মা এখন হংকংয়ে রয়েছেন—তা নিশ্চিত করে সূত্র দুটি জানিয়েছে, গত সপ্তাহে তিনি ‘অল্প কয়েকজন’ ব্যবসায়িক সহযোগীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। তাঁদের সঙ্গে খাবারের বিষয়ে জ্যাক মার কথা হয়েছে বলেও জানিয়েছে সূত্র দুটি।

জ্যাক মা বেশির ভাগ সময় চীনের পূর্বাঞ্চলীয় শহর হাংঝুতে থাকেন। সেখান থেকেই নিজের ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করেন তিনি। হাংঝুতেই তাঁর ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের সদর দপ্তর। সাবেক ব্রিটিশ কলোনিতে তাঁর বিলাসবহুল একটি বাড়ি রয়েছে। কোম্পানির কিছু ব্যবসায়িক কার্যক্রমও সেখান থেকে পরিচালিত হয়। আলিবাবা নিউইয়র্কের বাইরে হংকংয়ের পুঁজিবাজারেও তালিকাভুক্ত কোম্পানি।

একসময় ইংরেজির শিক্ষক ছিলেন জ্যাক মা। নিখোঁজ হওয়ার তিন মাস পর গত জানুয়ারিতে প্রকাশ্যে আসেন তিনি। ভিডিও লিংকের মাধ্যমে একদল শিক্ষকের উদ্দেশে বক্তব্য দেওয়ার সময় তখন তাঁকে প্রকাশ্যে দেখা যায়। এতে তাঁর নিখোঁজের বিষয়ে দেখা দেওয়া গুঞ্জনের অবসান ঘটে। জ্যাক মা প্রকাশ্যে আসার পরপরই পোয়াবারো হয় তাঁর কোম্পানির। এক লাফে আলিবাবার শেয়ারের মূল্য অনেকটা বেড়ে যায়।

এরপর গত মে মাসে জ্যাক মাকে আবার দেখা যায়। এবার ভার্চ্যুয়ালি নয়, প্রকাশ্যে আসেন তিনি। হাজির হন আলিবাবার হাংঝু ক্যাম্পাসে; যদিও তাঁকে সেখানে তেমন একটা দেখা যায় না। কোম্পানির একাধিক সূত্র তখন জানায়, আলিবাবার কর্মী ও তাঁদের পরিবারকে নিয়ে কোম্পানির বার্ষিক আয়োজন ‘আলি ডে’তে যোগ দিতেই মূলত হাংঝুতে যান জ্যাক মা।

গত সেপ্টেম্বরে জ্যাক মার কিছু ছবি প্রকাশিত হয়। দেখা যায়, জ্যাক মা গেছেন চীনের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ ঝেঝিয়াংয়ে। এখান থেকেই আলিবাবা ও তাদের সহযোগী আর্থিক সেবাদাতা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান অ্যান্ট গ্রুপের যাত্রা শুরু। তখন তাঁকে সেখানে কয়েকটি কৃষিজাত গ্রিনহাউস পরিদর্শন করতে দেখা যায়। তাঁর সেসব ছবি চীনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোয় ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে।

আলিবাবা ও তাদের প্রযুক্তি ব্যবসায় প্রতিদ্বন্দ্বী কোম্পানিগুলোর ওপর চীনের নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন কারণে ব্যাপক নিয়ন্ত্রণ আরোপ করছে। এর মধ্যে তাদের একচেটিয়া ব্যবসার ওপর সরকারি নিয়ন্ত্রণ থেকে শুরু করে ভোক্তা অধিকারের মতো নানা বিষয় রয়েছে। একচেটিয়া ব্যবসার জন্য সরকার কর্তৃক বেঁধে দেওয়া নিয়ম ভাঙার কারণে এ বছরের এপ্রিলে ই-কমার্স জায়ান্ট আলিবাবাকে রেকর্ড ২৭৫ কোটি ডলার জরিমানাও করা হয়।

এ ছাড়া এই বছরের শুরুতে চীনা নিয়ন্ত্রক সংস্থা আলিবাবার সহযোগী প্রতিষ্ঠান অ্যান্ট গ্রুপের পুনর্গঠনে বেশ কিছু নির্দেশ আরোপ করে। এর আগে অ্যান্ট হংকং ও সাংহাইয়ে নাসডাকের মতো স্টার মার্কেটে বিশ্বের সর্ববৃহৎ ৩ হাজার ৭০০ কোটি ডলারের আইপিও ছেড়েছিল।

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন