default-image

করোনাভাইরাস চীনের পরীক্ষাগার থেকেই ছড়িয়েছে কি না, সে ব্যাপারে নিশ্চিত হতে আরও কাজ করার প্রয়োজন আছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সংস্থাটির প্রধান তেদরোস আধানম গেব্রেয়াসুস এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, এ বিষয়ে নিশ্চিত হতে বা এ তত্ত্বকে নাকচ করতে আরও গবেষণা ও অনুসন্ধানের প্রয়োজন আছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদন প্রকাশের পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, কোভিড-১৯ রোগের উৎপত্তি নিয়ে আমেরিকান জনগণের আরও বেশি তথ্য পাওয়ার অধিকার রয়েছে। হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব জেন সাকি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য কয়েকটি দেশ চীনকে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য দিতে ব্যর্থ হওয়ায় সমালোচনা করেছে। বেইজিং অবশ্য বরাবরই পরীক্ষাগার থেকে করোনাভাইরাস ছড়ানোর অভিযোগটি অস্বীকার করে আসছে।

করোনাভাইরাসের উৎপত্তি নিয়ে চীনা বিশেষজ্ঞ ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার করা প্রতিবেদন গতকাল মঙ্গলবার প্রকাশিত হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চীনের পরীক্ষাগার থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা বেশ কম। সম্ভবত বাদুড় থেকে করোনাভাইরাসটি মানুষের দেহে ছড়িয়েছে। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাম্প্রতিক প্রতিবেদন নিয়ে এখনো পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেনি চীন।

বিজ্ঞাপন

গতকাল ১২০ পৃষ্ঠার এ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান তেদরোস আধানম গেব্রেয়াসুস বলেন, করোনাভাইরাস যে চীনের পরীক্ষাগার থেকেই ছড়িয়েছে, সেটি প্রমাণ করতে আরও গবেষণা ও অনুসন্ধানের প্রয়োজন রয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, ডব্লিউএইচওর জানা সব ধরনের অনুমানই এই টেবিলে আছে।’

এদিকে সিএনএনের খবরে বলা হয়েছে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদন প্রকাশের পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, কোভিড-১৯ রোগের উৎপত্তি নিয়ে আমেরিকান জনগণের আরও বেশি তথ্য পাওয়ার অধিকার রয়েছে। হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব জেন সাকি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রসহ ১২টি দেশ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদন নিয়ে এরই মধ্যে প্রশ্ন তুলেছে। দেশগুলো একটি নিরপেক্ষ ও পুরোপুরি স্বচ্ছ মূল্যায়নের আহ্বান জানিয়েছে।

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন