বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে উহানের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা লি তাও বলেন, শহরের প্রায় সব অধিবাসীকেই করোনা পরীক্ষার আওতায় আনা হয়েছে। পরীক্ষা থেকে শুধু বাদ গেছে ছয় বছরের কম বয়সী শিশু ও গ্রীষ্মকালীন অবকাশে থাকা শিক্ষার্থীরা।

গত শনিবার নাগাদ শহরটিতে স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত ৩৭ জন শনাক্ত হয়। এ ছাড়া গণহারে পরীক্ষায় উপসর্গহীন ৪১ ব্যক্তির করোনা ধরা পড়ে।

উহান কর্তৃপক্ষ জানায়, শহরজুড়ে গণহারে করোনা পরীক্ষার জন্য তারা ২৮ হাজারের বেশি স্বাস্থ্যকর্মীকে নিযুক্ত করে। পরীক্ষার জন্য শহরে প্রায় ২ হাজার ৮০০ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনা শনাক্ত হয়েছিল। কঠোর বিধিনিষেধসহ অন্যান্য পদক্ষেপের মাধ্যমে চীন স্থানীয়ভাবে করোনার সংক্রমণ কার্যত শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনে।

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনার মধ্য দিয়ে চীন অর্থনৈতিক কার্যক্রম চালু করে দেয়। পাশাপাশি দেশটিতে মানুষের জীবনযাত্রাও অনেকটা স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরে। তবে দেশটিতে নতুন করে করোনার সংক্রমণ দেখা দেওয়ায় কর্তৃপক্ষ বেশ উদ্বিগ্ন। বিশেষ করে চীনে এখন করোনার অতি সংক্রামক ডেলটা ধরনের সংক্রমণ ঘটছে।

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন