বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

‘কুইন অব লাইভস্ট্রিমিং’ ভিয়া নামে পরিচিত হলেও তাঁর প্রকৃত নাম হুয়াং ই। তাঁর বিরুদ্ধে ২০১৯ ও ২০২০ সালে ব্যক্তিগত আয়ের তথ্য লুকানো ও অন্য অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগ আনে চীনের দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর হাংঝুর আয়কর বিভাগ।

এদিকে কর ফাঁকি দিয়ে জরিমানা গোনার ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছেন তারকা হুয়াং ই। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম উইবোতে তিনি লিখেছেন, ‘কর আইন ও প্রবিধান ভঙ্গ করায় আমি খুবই দুঃখিত। কর্তৃপক্ষের দেওয়া শাস্তি আমি পুরোপুরি মেনে নিয়েছি।’
৩৬ বছর বয়সী হুয়াং লাইভস্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম তাওবাওয়ে বিভিন্ন ধরনের পণ্য বিক্রি করার জন্য সুপরিচিত। গত বছর চার কোটি ইউয়ানের রকেট উৎক্ষেপণসংশ্লিষ্ট প্রযুক্তিপণ্য বিক্রি করেন তিনি।

চীনের প্রযুক্তি খাতে কারও একচেটিয়া ব্যবসা বন্ধ করতে বেশ কিছুদিন আগেই তৎপরতা শুরু করে দেশটির কর্তৃপক্ষ। এর অংশ হিসেবে ব্যক্তিগত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও বিনোদনজগতের সেলিব্রিটিদের নিশানা করা হয়। অনলাইন তারকাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার অংশ হিসেবে হুয়াং ইকে এই জরিমানা করা হয়েছে বলে অনেকে মনে করছেন।

এই ধরপাকড় শুরুর আগে দীর্ঘদিন ধরে চীনের সেলিব্রিটিদের মধ্যে শুল্ক ফাঁকি দেওয়ার প্রবণতা দেখা গেছে। আর এ–সংক্রান্ত কেলেঙ্কারিতে পড়ে অনেক আলোচিত সেলিব্রিটির পেশাজীবন নষ্ট হয়ে গেছে।

ব্যক্তিগত কর ফাঁকির অভিযোগে গত মাসে চীনের দুজন লাইভস্ট্রিমিং ইনফ্লুয়েন্সারকে প্রায় ১০ কোটি ইউয়ান জরিমানা করা হয়। এ ঘটনার পর থেকে তাঁদের লাইভস্ট্রিমিং সুবিধা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। হুয়াং ইকেও হয়তো একই পরিণতি বরণ করতে হচ্ছে। কারণ, গতকাল প্রসাধনী পণ্য নিয়ে তাঁর একটি পূর্বনির্ধারিত সরাসরি সম্প্রচার অনুষ্ঠান সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন