বিজ্ঞাপন

জননিরাপত্তা মন্ত্রণালয় সূত্র বলেছে, বুধবার দুপুর পর্যন্ত পুলিশ ১৭০টি অপরাধী চক্রকে শনাক্ত করেছে। এসব চক্র ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার করে অর্থ পাচারে জড়িত ছিল।
এসব পাচারকারী অপরাধের সঙ্গে যুক্ত থাকা গ্রাহকদের কাছ থেকে দেড় থেকে ৫ শতাংশ হারে খরচ নিয়ে অবৈধ অর্থকে ভার্চ্যুয়াল মুদ্রায় রূপান্তর করে দিতেন।

চীনের পেমেন্ট অ্যান্ড ক্লিয়ারিং অ্যাসোসিয়েশন বলেছে, ভার্চ্যুয়াল মুদ্রা ব্যবহার করে অপরাধের সংখ্যা বাড়ছে। ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহারে পরিচয় গোপন রাখা এবং এটি বিশ্বব্যাপী গ্রহণযোগ্য হয়ে ওঠার কারণে আন্তসীমান্ত অর্থ পাচারের বড় চ্যানেল হয়ে উঠছে।

অবৈধ জুয়া কার্যক্রমে অর্থ পরিশোধের বড় মাধ্যম হয়ে উঠেছে এসব ক্রিপ্টোকারেন্সি। বর্তমানে প্রায় ১৩ শতাংশ জুয়ার সাইটে এ ধরনের ভার্চ্যুয়াল মুদ্রা সমর্থন করে। ব্লকচেইন প্রযুক্তির কারণে এ ধরনের অর্থের ওপর নজর রাখাও কর্তৃপক্ষের জন্য কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন