বিজ্ঞাপন

এর আগে স্থানীয় সময় সোমবার বিকেলে উপকূলীয় শহরটির সিজি কাইয়ুআন নামের হোটেলটির একটি অংশ ধসে পড়ে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ওই ভবনে একাধিক সংস্কারকাজ হয়েছে বলে জানিয়েছেন অনেকে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়, ভবন ধসের পর ৩৬ ঘণ্টায় উদ্ধারকর্মীরা ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে ২৩ জনকে বের করে আনেন। তাঁদের মধ্যে ছয়জনকে জীবিত অবস্থায় পাওয়া যায়।

চীনের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেল জানায়, উদ্ধার হওয়া ব্যক্তিদের অবস্থা স্থিতিশীল। ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে তদন্ত করা হচ্ছে। হোটেলটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অনেককেই আটক করা হয়েছে।

সুঝোউ শহর পর্যটকদের কাছে বেশ জনপ্রিয়। সেখানে ১ কোটি ২০ লাখের বেশি মানুষ বসবাস করে। শহরটিতে সিজি কাইয়ুআন হোটেলটি ২০১৮ সালে চালু হয়। ৫৪ কক্ষের এই আবাসিক হোটেলে তুলনামূলক সস্তায় থাকতে পারতেন মানুষ।

ভবন ধসের ঘটনা চীনে একেবারেই নতুন নয়। দুর্বল নির্মাণকাজের জন্য আগেও দেশটিতে একাধিক ভবন ধসের ঘটনা ঘটেছে। গত বছরের মার্চে চীনের কুয়ানঝোউ শহরে একটি হোটেল ধসে ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছিল। তদন্তকারীরা পরে জানতে পারেন, চারতলার অনুমোদন নিয়ে হোটেল ভবনটি অবৈধভাবে সাততলা পর্যন্ত নির্মাণ করা হয়েছিল।

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন