এদিকে তাইওয়ানের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, গত শুক্রবার চীনের ১৮টি যুদ্ধবিমান তাদের আকাশ প্রতিরক্ষায় ঢোকার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তাদের বিমানবাহিনী চীনা যুদ্ধবিমানগুলোকে সতর্ক করে ও তাড়িয়ে দেয়। এরপর শনিবার ও গতকাল রোববার আবার চীনা যুদ্ধবিমান ঢোকার চেষ্টা করে। তবে এবার যুদ্ধবিমানের সংখ্যা ছিল কম।
চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ড বিবৃতিতে বলেছে, শুক্রবার থেকে গতকাল পর্যন্ত তাইওয়ানের পূর্ব ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে মহড়া চালিয়েছে নৌ ও বিমানবাহিনী।

সশস্ত্র বাহিনীর বিভিন্ন শাখার যৌথ অভিযান সক্ষমতা বাড়ানোর লক্ষ্যে এই মহড়া হয়েছে বলে সেনাবাহিনীর ওই বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, বোমারু বিমান, যুদ্ধবিমান ও সাবমেরিন–বিধ্বংসী যুদ্ধবিমান চীনের এই সামরিক মহড়ায় অংশ নিয়েছিল। তবে কোথাও গুলি বা আঘাত করা হয়নি। তবে ওই মহড়ায় চীনের কোনো যুদ্ধবিমান তাইওয়ানের আকাশসীমায় প্রবেশ না করলেও তাদের আকাশ প্রতিরক্ষা সীমায় ঢুকেছিল।

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন