বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জিমি লাই এখনো কারাগারেই রয়েছেন। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের ১ অক্টোবর বিক্ষোভে অংশ নেওয়ায় জিমি লাইকে এ কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। ৭৩ বছর বয়সী এই ধনকুবের একই ধরনের মামলায় সাজা ভোগ করছেন। যে মামলায় এর আগে তিনি সাজা ভোগ করছেন, সেই মামলায় বলা হয়েছিল যে জিমি লাই ২০১৯ সালের ১৮ ও ৩১ আগস্ট বিক্ষোভে অংশ নিয়েছিলেন।

হংকংয়ের বিচারক আমান্দা উডকক আজ রায় ঘোষণা করে বলেন, জিমি লাই আগের সাজার পাশাপাশি নতুন এ সাজাও ভোগ করবেন। অর্থাৎ জিমি লাইকে মোট ২০ মাস কারাগারে থাকতে হবে। এ বিচারকই এর আগে গত এপ্রিলের রায়টিও দিয়েছিলেন।

জিমি লাই গত বছরের ডিসেম্বর থেকে কারাগারে রয়েছেন। জাতীয় নিরাপত্তা আইনে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। এরপর আদালত তাঁকে আর জামিন দেননি। তাঁর বিরুদ্ধে মোট তিনটি অভিযোগ আনা হয়েছে বিতর্কিত এ আইনে।

২০২০ সালের জাতীয় নিরাপত্তা আইনটি পাস করা হয়। এ আইন পাসের পর থেকে হংকংয়ের গণতন্ত্রকামী অধিকারকর্মীদের ওপর খড়গহস্ত হয়েছে চীন সরকার। এ আইনে জিমি লাই ছাড়া আরও কয়েকজন অধিকারকর্মীকে গ্রেপ্তার ও সাজা দেওয়া হয়েছে। গত বছর জিমি লাইকে গ্রেপ্তারের পর থেকে আন্তর্জাতিক মহল চীনের সমালোচনা করছে। কিন্তু চীন জিমি লাইকে একজন দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রকারী হিসেবে বিবেচনা করে থাকে।

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন