default-image

হংকংয়ে দুই বছর আগে অবৈধ সমাবেশের অভিযোগে শীর্ষ সাত গণতন্ত্রপন্থী নেতাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে আছেন সেখানকার ‘গণতন্ত্রের পিতা’খ্যাত এক বর্ষীয়ান আইনজীবী ও এক মিডিয়া মোগল।

আজ বৃহস্পতিবার হংকংয়ের পশ্চিম কোওলুনের একটি আদালত এ রায় ঘোষণা করেছেন। মামলার পরবর্তী তারিখে সাজার মেয়াদ ঘোষণা করা হবে। দোষী সাব্যস্ত ব্যক্তিদের পাঁচ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

স্থানীয়ভাবে ‘গণতন্ত্রের পিতা’খ্যাত ওই আইনজীবীর নাম মার্টিন লি। আর দোষী সাব্যস্ত মিডিয়া মোগলের নাম জিমি লাই।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালে হংকংয়ে একটি রাজনৈতিক আয়োজনের কারণে মার্টিন লি, জিমি লাইসহ অন্যদের বিরুদ্ধে মামলা হয়। সেই অভিযোগেই দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন সাতজন। বিশ্লেষকেরা বলছেন, মার্টিন লিয়ের মতো ব্যক্তিত্বকে কারাদণ্ড হতে যাওয়ার অর্থ হলো, হংকংয়ে ভিন্ন মতাবলম্বীদের জায়গা আর নেই বললেই চলে।

তবে মার্টিন লিকে ঘিরে বিতর্ক আছে। তাঁর বয়স প্রায় ৮২ বছর। মার্টিন হংকংয়ের গণতন্ত্রকামী আন্দোলনে দীর্ঘদিন ধরেই জড়িত ছিলেন। তবে তাঁর বিরুদ্ধে এ-ও অভিযোগ আছে যে তিনি চীনা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অপেক্ষাকৃত নরম সুরে কথা বলতেন। একসময় হংকংয়ের সংবিধানের খসড়া প্রস্তুতে সহায়তা করতেও তাঁকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল বেইজিং। অথচ এখন সেই বেইজিংয়ের অঙ্গুলিহেলনেই কারাগারে যেতে হতে পারে মার্টিনকে।

বিজ্ঞাপন

একপর্যায়ে চীনা কর্তৃপক্ষ মার্টিন লিকে ‘বিশ্বাসঘাতক’ হিসেবে চিহ্নিত করে। সব সময়ই রাজনৈতিক সহিংসতার বিরোধিতা করে এসেছেন লি। গণতন্ত্রের দাবিতে হংকংয়ে বিক্ষোভকারীদের সহিংস আচরণেরও সমালোচনা করেছিলেন তিনি।

গত বছর মার্টিন লিকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের সময় তিনি বলেছিলেন, ‘অবশেষে আমি আসামি হতে যাচ্ছি। আমি কেমন বোধ করছি? আমি বেশ স্বস্তিবোধ করছি।

অনেক বছর ধরে, অনেক মাস ধরে, অসংখ্য ভালো তরুণদের গ্রেপ্তার ও তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। কিন্তু আমাকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। আমার খুব দুঃখবোধ হতো।’

চীন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন