বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ডব্লিউএইচওর ইউরোপীয় প্রধান বলেন, করোনা সংক্রমণের আরেকটি ঝড় আসছে। এ ক্ষেত্রে সংক্রমণ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধির কারণে সরকারগুলোর প্রস্তুত হওয়া উচিত।

অমিক্রনের সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে বিভিন্ন দেশ আবার সামাজিক দূরত্বের বিধি জারি করছে। এমন সময় ডব্লিউএইচওর ইউরোপীয় প্রধানের কাছ থেকে অমিক্রন নিয়ে সতর্কতা এল।

জার্মানি ক্রিসমাস-পরবর্তী নতুন বিধিনিষেধ ঘোষণা করেছে। জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎস বলেছেন, ‘আমরা পরবর্তী ঢেউ, যেটি আমাদের ওপর আছড়ে পড়তে শুরু করেছে, সেটির ব্যাপারে চোখ বন্ধ করে থাকতে পারি না। আর তা করাও উচিত নয়।’

পর্তুগাল ২৬ ডিসেম্বর থেকে পানশালা ও নৈশক্লাব বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ক্রিসমাসের আগে ইংল্যান্ডে কোনো নতুন বিধিনিষেধ জারির বিষয়টি নাকচ করে দিয়েছেন। তবে স্কটল্যান্ড, ওয়েলস ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের কর্তৃপক্ষ সামাজিক সম্মিলনের ওপর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়েছে।

গত মাসে দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম করোনার অমিক্রন ধরন শনাক্ত হয়। তারপর তা দ্রুত বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে।

ডব্লিউএইচওর ইউরোপীয় অঞ্চলের ৫৩টি দেশের মধ্যে ৩৮টিতেই অমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। এই দেশগুলোর মধ্যে রাশিয়া ও তুরস্কও আছে। ইউরোপের অনেক দেশে অমিক্রন ধরন আধিপত্যশীল হয়ে উঠেছে।

ডব্লিউএইচওর ইউরোপীয় প্রধান বলেন, ‘আমরা দেখতে পাচ্ছি, আরেকটি ঝড় আসছে। কয়েক সপ্তাহের মধ্যে অমিক্রন এই অঞ্চলের আরও অনেক দেশে আধিপত্য বিস্তার করবে, যা ইতিমধ্যে চাপে থাকা স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে চরমসীমার দিকে ঠেলে দেবে।’

অমিক্রন ধরনের সংক্রমণ রোধে নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর উৎসব-আয়োজন বাতিল করার আহ্বান জানিয়েছেন ডব্লিউএইচওর মহাসচিব তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন