বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

লকডাউনের আওতায় নেদারল্যান্ডসে নিত্যপ্রয়োজনীয় ছাড়া অন্যান্য পণ্যের দোকান, পানশালা, ব্যায়ামাগার, সেলুন এবং অন্যান্য জনসমাগমের জায়গাগুলো আগামী বছরের জানুয়ারির মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। বাড়িতে দুজনের বেশি অতিথিকে নিমন্ত্রণ জানানো যাবে না। তবে বড়দিন উপলক্ষে ২৪ থেকে ২৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত এবং নতুন বছরের আয়োজনে একসঙ্গে সর্বোচ্চ চারজন অতিথি ডাকা যাবে।

দেশটিতে আগামী ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। তবে অন্যান্য বিধিনিষেধ কার্যকর থাকবে ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত। সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে নেদারল্যান্ডস সরকার। তবে এ সময়ের মধ্যে সংক্রমণ ঠেকাতে জনগণকে বাড়িতে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এই বিষয়ে স্থানীয় সময় শনিবার নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট্টে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘আমি বিষন্ন হৃদয়ে আজ এখানে দাঁড়িয়ে কথা বলছি। অনেকেই আমার অনুভূতি বুঝতে পারছেন। আজ অনেকটা একই অনুভূতি আপনাদেরও। এক কথায় বলতে গেলে, রোববার থেকে নেদারল্যান্ডস আবারও লকডাউনে ফিরতে বাধ্য হচ্ছে।’

নেদারল্যান্ডসের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথের তথ্য অনুায়ী, মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে ২৯ লাখের বেশি মানুষের করোনা শনাক্ত হয়েছে। করোনায় মারা গেছেন ২০ হাজারের বেশি মানুষ। বর্তমানে দেশটিতে অমিক্রন দ্রুত ছড়াতে শুরু করেছে।

শুধু নেদাল্যান্ডস নয়, যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপের অন্য দেশগুলোয় অমিক্রন রীতিমত আতঙ্ক ছড়িয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মতে, করোনার ডেলটা ধরনের চেয়ে কয়েক গুণ দ্রুতগতিতে ছড়াচ্ছে ভাইরাসটির নতুন ধরন অমিক্রন। এ গতি এতটাই যে বিভিন্ন দেশে মাত্র দেড় থেকে তিন দিনে অমিক্রনে সংক্রমণের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে যাচ্ছে।

এমনকি উচ্চমাত্রায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাসম্পন্ন মানুষের শরীরে অমিক্রন দ্রুত ছড়াচ্ছে— গতকাল শনিবার এমন তথ্য জানিয়েছে ডব্লিউএইচও। সংস্থাটি বলছে, এমনটি কেন হচ্ছে, তা এখনো পরিষ্কার নয়। ডব্লিউএইচওর তথ্য অনুযায়ী, প্রথমে দক্ষিণ আফ্রিকা গত ২৪ নভেম্বর দেশটিতে অমিক্রনের সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার ঘটনা তাদের অবগত করে। এর পর থেকে মাত্র তিন সপ্তাহের কিছু বেশি সময়ে বিশ্বের ৮৯টি দেশে করোনার নতুন ধরনটি ছড়িয়ে পড়ার খবর পাওয়া গেছে।

অমিক্রন ঠেকাতে এখন পর্যন্ত টিকার ওপরই জোর দিচ্ছে ডব্লিউএইচও। ইউরোপ-আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশের নেতারাও কঠোর বিধিনিষেধের সিদ্ধান্ত না নিয়ে টিকা দেওয়ার ওপর জোর দিচ্ছেন। তবে টিকা বণ্টনের ক্ষেত্রে বৈষম্য হচ্ছে এবং মহামারি মোকাবিলায় নেওয়া পদক্ষেপে সমন্বয় খুব প্রয়োজন উল্লেখ করে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ বলেছেন, সমন্বয়হীন পদক্ষেপ নিলে মহামারি মোকাবিলা করা সম্ভব নয়।

ফরাসি প্রধানমন্ত্রী জ্যঁ ক্যাসটেক্স শনিবার বলেছেন, ইউরোপে করোনা বিদ্যুৎগতিতে ছড়াচ্ছে। নতুন বছরের শুরুতে এটি ফ্রান্সেও প্রভাব বিস্তার শুরু করবে বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন। যুক্তরাজ্যে ভ্রমণ ও সে দেশ থেকে লোকজনের আসা ঠেকাতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা শুরু হওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগে এ মন্তব্য করেন তিনি।

এদিকে যুক্তরাজ্যে করোনার সংক্রমণ নতুন করে বাড়তে শুরু করেছে। গত শুক্রবার যুক্তরাজ্যে নতুন করে ৯৩ হাজার ৪৫ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। মহামারি শুরুর পর এটাই দেশটিতে একদিনে করোনার সংক্রমণ শনাক্তের সর্বোচ্চ সংখ্যা। যুক্তরাজ্যে অমিক্রনে আক্রান্ত হয়েছে ১০ হাজারের বেশি মানুষ। আগামী কয়েক দিনে এ সংখ্যা বাড়তির দিকে থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করছে দেশটির স্বাস্থ্যসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন