বিজ্ঞাপন

গ্লাক্সোস্মিথক্লাইন অ্যাডজুভান্ট নামের টিকার কার্যকারিতা বাড়ানোর বুস্টার তৈরিতে কাজ করছে। এই অ্যাডজুভান্ট অনেক টিকার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি টিকা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করছে গ্লাক্সোস্মিথক্লাইন। তাদের সবচেয়ে এগিয়ে থাকা প্রকল্পটি হচ্ছে ফ্রান্সের টিকা প্রন্তুতকারক সানোফির সঙ্গে। এ টিকা আগামী বছর অনুমোদন পেতে পারে।

দ্রুতগতিতে টিকা পরীক্ষার পক্ষে অবস্থান নিয়ে এমা বলেন, দ্রুত টিকা তৈরির পথে সুরক্ষার সঙ্গে আপস করা হচ্ছে না। কারণ, পরীক্ষাগুলো স্বাভাবিকের চেয়ে ছোট আকারের নয় এবং নিয়ন্ত্রকেরা ও কোম্পানিগুলো সমান্তরাল পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আগে এ ধরনের পদক্ষেপ ধারবাহিকভাবে করা হতো।

এমা আরও বলেন, ‘আমরা ১০ বছরের সময়সীমাকে ২ বছরে নামিয়ে এনেছি। মানুষকে এটা নিশ্চয়তা দিতে চাই যে আমরা নিয়ন্ত্রকদের সঙ্গে ভিন্ন স্তরের সহযোগিতা করে এ কাজ করতে সক্ষম হয়েছিল। আমরা আমাদের বিনিয়োগ ঝুঁকিতে ফেলেছি। সরকার তাদের তহবিল ঝুঁকিতে ফেলেছে, যাতে আমরা টিকা ঠিকমতো পরীক্ষা করতে পারি। ব্যাপক আকারে টিকার কার্যকারিতা পরীক্ষায় এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

গত মে মাসে জিএসকে বলেছিল, আগামী বছরে কোভিড-১৯ শটগুলোর জন্য ভ্যাকসিন কার্যকারিতা বুস্টারগুলোর (অ্যাডজুভান্টস) ১০০ কোটি ডোজ উৎপাদন করার পরিকল্পনা করছে তারা।

জিএসকের অ্যাডজুভান্টটি বর্তমানে বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে পরীক্ষা চলা সাতটি ভ্যাকসিনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হতে পারে । প্রচলিত টিকার পদ্ধতিতে অ্যাডজুভান্ট একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান, যা সংক্রমণের বিরুদ্ধে শক্তিশালী এবং দীর্ঘস্থায়ী অনাক্রম্যতা তৈরি করতে পারে। অ্যাডজুভান্টসের কারণে একটি ভ্যাকসিনে প্রোটিনের কম ডোজ লাগে বলে বেশি ভ্যাকসিন উৎপাদন করা যায়।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন