default-image

ইউরোপের দেশ চেক রিপাবলিকে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। তাই দেশটি নতুন করে তিন সপ্তাহের জন্য আংশিক লকডাউনে যাচ্ছে। দেশটিতে করোনা প্রতিরোধের জন্য স্কুল, পানশালা ও ক্লাব বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। রেস্তোরাঁ কেবল খাবার সরবরাহ করার জন্য বিশেষ বিধিনিষেধের আওতায় খোলা রাখা হচ্ছে। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

চেক রিপাবলিকে আংশিক লকডাউনের মধ্যেও কিন্ডারগার্টেনগুলো খোলা থাকবে। তবে এ ক্ষেত্রে কঠোর বিধিনিষেধ মানতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ডরমিটরিগুলো সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।

বর্তমানে চেক রিপাবলিকে ইউরোপের মধ্যে সবচেয়ে বেশি করোনা সংক্রমণের হার লক্ষ করা যাচ্ছে।

গত সোমবার চেক সরকার জানিয়েছে, দেশটিতে নতুন এ লকডাউনের মেয়াদ আগামী ৩ নভেম্বর পর্যন্ত। এ সময় পানশালায় যাওয়া বন্ধ রাখতে হবে।

বিজ্ঞাপন

ইউরোপীয় ইউনিয়নের ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোলের (ইসিডিসি) ১৩ অক্টোবর দেওয়া প্রতিবেদন অনুযায়ী, চেক রিপাবলিকে গত ১৪ দিনে করোনায় সংক্রমিত হয়েছে ৫৫ হাজার ৫৩৮ জন। আট গুণ বেশি জনসংখ্যার দেশ জার্মানিতে শনাক্তের সংখ্যা ৪২ হাজার ৩২ জন।

ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে যুক্তরাজ্যেও করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। বিবিসি জানিয়েছে, যুক্তরাজ্য নতুন করে লকডাউন দেওয়ার কথা ভাবছে।

চেক রিপাবলিকের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জ্যান হ্যামাচেক বলেন, ‘৮০ হাজার শনাক্ত হয়ে গেলে তা সমস্যা হবে। ১ লাখ ২০ হাজার হয়ে গেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। আমরা ৬১ হাজারে গিয়ে ঠেকেছি। এখন এ সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে।’

যাঁরা দেশটিতে পূর্ণ লকডাউন চান, তাঁদের মধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জ্যান হ্যামাচেক একজন। তবে দেশটিতে নতুন যে নিয়ম জারি হয়েছে, তা মূলত শিথিল লকডাউনের। কিন্তু এ লকডাউন যথেষ্ট হবে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

চেক রিপাবলিকে এখন পর্যন্ত করোনায় ১ হাজার ৫১ জন মারা গেছে। গত ১ মার্চ দেশটিতে প্রথম করোনার রোগী শনাক্ত হয়।

মন্তব্য করুন