বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

লিভারপুল শহরে পিয়ার হেড, আলবার্ট ডক এবং উইলিয়াম ব্রাউন স্ট্রিটসহ ছয়টি এলাকার সমন্বয়ে গঠিত লিভারপুল মেরিটাইম মার্কেন্টাইল সিটিকে ২০০৪ সালে বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে ইউনেসকো। তবে ২০১২ সালে এসে সংস্থাটি শহরটির নাম ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ ইন ডেনজার’ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে। এবার সরাসরি তালিকা থেকে বাদ পড়ল লিভারপুলের নাম।

বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে কোনো নাম বাদ দিতে সংস্থাটির কার্যকরী কমিটির সদস্যদেশগুলোর দুই–তৃতীয়াংশের বেশি সমর্থন প্রয়োজন হয়। আজকের ভোটাভুটিতে লিভারপুলের নাম বাদ দিতে সমর্থন জানায় ইউনেসকোর ১৩ সদস্য। আর প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দেয় ৫ সদস্য।

এ বিষয়ে ইউনেসকোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ কমিটির চেয়ারম্যান তিয়ান জুয়েজুন বলেন, লিভারপুল মেরিটাইম মার্কেন্টাইল সিটির নাম বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বাদ পড়েছে। তালিকা থেকে কারও নাম বাদ যাওয়ার ঘটনা এটা তৃতীয়। এর আগে ওমান ও জার্মানির দুটি জায়গাকে তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল।

মাত্রাতিরিক্ত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড, বিশেষত লিভারপুল ওয়াটার প্রজেক্ট ও ফুটবল স্টেডিয়াম তৈরির দুটি মেগা প্রকল্প বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে শহরটির নাম কাটানোর পেছনে ভূমিকা রেখেছে। দুই দিনের আলোচনা শেষে ইউনেসকোর কমিটি মনে করছে, একের পর এক সুউচ্চ ভবন নির্মাণ ও মাত্রাতিরিক্ত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড উত্তর–পশ্চিম ইংল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী বন্দর নগরী লিভারপুলের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এ বিষয়ে লিভারপুলের নবনির্বাচিত মেয়র জোয়ানি অ্যান্ডারসন বলেন, ‘ইউনেসকোর এ সিদ্ধান্ত আমাদের হতাশ করেছে। সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য আপিল আবেদনের চেষ্টা করা হবে।’

আর ব্রিটিশ সরকারের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই সিদ্ধান্তে আমরা হতাশ হয়েছি এবং ব্রিটিশ সরকার এখনো বিশ্বাস করে, ঐতিহাসিক বন্দর নগরী হিসেবে লিভারপুলের বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে মর্যাদা ধরে রাখার যোগ্যতা রয়েছে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন