বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ গতকাল শনিবার তাঁদের মধ্যে কয়েকজনকে আটক করেছে। তবে এখনো ১২ জন পলাতক।

বিমানবন্দর থেকে যাত্রীরা নিজেরাই পালিয়ে গেছেন, নাকি তাঁরা অবৈধভাবে দেশটিতে থাকার চক্রান্ত করছিলেন, তা নিয়ে তদন্ত করছে পুলিশ।

স্পেনের বালেয়ারিক দ্বীপপুঞ্জের শীর্ষ সরকারি কর্মকর্তা আইনা কালভো বলেন, বিমানবন্দরের এ ঘটনা অপ্রত্যাশিত।

মরক্কোর অসুস্থ এক যাত্রীকে সেবা দিতে এয়ার অ্যারাবিয়া মারোক বিমানে ওঠে জরুরি সেবা দল। সে সময় ২১ জন যাত্রী বিমান থেকে নেমে পালিয়ে যান। তাঁরা রানওয়েতে থেমে থাকা বিমানগুলোর নিচে লুকিয়ে যান। পরে সীমানাপ্রাচীর পেরিয়ে পালান।

স্পেনের এফে সংবাদ সংস্থার খবরে জানা যায়, পরীক্ষার পরে চিকিৎসকেরা বিমানের আরোহী মরক্কোর ওই ব্যক্তি সুস্থ আছেন বলে জানান। অবৈধভাবে দেশে ঢোকার জন্য তাঁকে আটক করা হয়েছে। ওই যাত্রীর সঙ্গে থাকা আরেক যাত্রীকে হাসপাতালে পৌঁছানোর পর থেকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলেও খবরে জানানো হয়।

পালিয়ে যাওয়ার পর বেশির ভাগ ব্যক্তিকে আটক করেছে স্পেনের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। আটক ব্যক্তির সংখ্যা ২৪। তাঁদের মধ্যে থেকে একজনকে বিমানের ভেতরে আক্রমণাত্মক আচরণ করায় আটক করা হয়।

এ ঘটনার পরে ওই বিমানবন্দরের প্রায় ৬০টি ফ্লাইটের যাত্রা বিলম্বিত হয়। পরে অবশিষ্ট যাত্রীদের নিয়ে গন্তব্যে যায় এয়ার অ্যারাবিয়া মারোক।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন