জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে তুর্কি কুর্দিরা। কুর্দি নববর্ষের প্রাক্কালে শনিবার আয়োজিত ওই বিক্ষোভে জার্মানির বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এসে প্রায় ৩০ হাজার কুর্দি অংশ নেয়। ২১ মার্চ কুর্দি নতুন বছরের প্রথম দিন বা ‘নওরোজ’।
বিক্ষোভকারীরা তুরস্কে ‘গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার’ এবং প্রেসিডেন্টের নির্বাহী ক্ষমতা বাড়ানোর লক্ষ্যে সংবিধান সংশোধন নিয়ে ১৬ এপ্রিলের গণভোটে ‘না ভোট’ দেওয়ার আহ্বান জানান।
ফ্রাঙ্কফুর্ট পুলিশের একজন মুখপাত্র জানান, সমাবেশ শান্তিপূর্ণভাবেই শেষ হয়েছে। সমাবেশকারীদের অনেকের হাতে নিষিদ্ধ সংগঠন কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) ব্যানার ছিল। ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং যুক্তরাষ্ট্র উভয়েই এ সংগঠনটিকে সন্ত্রাসী হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে।
তুরস্ক সরকার এ বিক্ষোভের আয়োজনকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ বলে সমোলোচনা করেছে। বিক্ষোভ আয়োজনের অনুমতি দিয়ে জার্মানির সরকার ‘ভন্ডামি’ করেছে বলে অভিযোগ করেছে তারা।
এক বিবৃতিতে প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের মুখপাত্র ইব্রাহিম খালিন বলেন, ‘পিকেকের প্রতীক দেখা এবং স্লোগান অগ্রহণযোগ্য। অথচ তুরস্কের মন্ত্রী ও এমপিদের তাদের নিজ দেশের নাগরিকদের সঙ্গে সভা করতে বাধা দেওয়া হয়েছে।...ইউরোপের দেশগুলোকে মনে করিয়ে দিতে চাই, ১৬ এপ্রিলের গণভোটের ফল তুরস্কের নাগরিকেরা বেছে নেবে, ইউরোপের নাগরিকেরা নয়।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন