বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আরটিএল নেদারল্যান্ডসে প্রকাশিত পরিবারের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘পিটার শেষমুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই করে গেছেন। কিন্তু তিনি এই যুদ্ধে জয়লাভ করতে পারেননি। মৃত্যুর সময় তিনি প্রিয়জনদের মাঝেই ছিলেন।’

আরটিএল নেদারল্যান্ডসের পক্ষ থেকে বলা হয়, পিটার যেভাবে সারা জীবন সমাজের অনাচার-অবিচার নিয়ে কাজ করে গেছেন, একইভাবে তারা মুক্তভাবে কাজ করে যাবে।

পিটারকে সংকল্পবদ্ধ ও নির্ভীক প্রতিবেদক হিসেবে বর্ণনা করেছেন ডাচ্ প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট। পিটারের ওপর হামলাকারীদের শাস্তির আওতায় আনার অঙ্গীকার করেছেন ডাচ্ প্রধানমন্ত্রী।

গতকাল মার্ক রুট এক টুইটে বলেন, ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে পিটারের কাছে তাঁরা দায়বদ্ধ। তাঁরা নেদারল্যান্ডসে কখনো এ ধরনের কাজ মেনে নেবেন না। এই কাপুরুষোচিত কাজের জন্য অপরাধীকে শাস্তি পেতেই হবেই।

খ্যাতনামা সাংবাদিক পিটার ডাচ্ সংবাদমাধ্যম ‘আরটিএল নেদারল্যান্ডসে’ কর্মরত ছিলেন। ৬ জুলাই রাজধানী আমস্টারডামে তাঁকে গুলি করা হয়। সেদিন সন্ধ্যায় শহরে একটি টেলিভিশন চ্যানেলের স্টুডিও থেকে বের হওয়ার পর খুব কাছ থেকে তাঁকে লক্ষ্য করে পাঁচটি গুলি করা হয়। তাঁর মাথায় গুলি লেগেছিল। তারপর থেকে তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।

সাংবাদিকতার জন্য পিটার নেদারল্যান্ডসের আন্ডারওয়ার্ল্ডের অপরাধীদের কাছ থেকে বহুবার হুমকি পেয়েছিলেন। দেশটিতে তিনি ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন।

পিটার ২০০৮ সালে এমি অ্যাওয়ার্ড লাভ করেন। ২০০৫ সালে নেদারল্যান্ডসের অরুবা দ্বীপে মার্কিন কিশোরী নাটালি হলোওয়ে নিখোঁজের ঘটনা নিয়ে টেলিভিশন শোর জন্য তাঁকে এ পুরস্কার দেওয়া হয়েছিল।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন